আস্তে আস্তে বাজারে এভেলেবল হচ্ছে বেশি স্পিডের র‍্যাম, সম্প্রতি আমরা প্রায় সকল ব্রান্ডেরই র‍্যামে একাধিক স্পিডের ভ্যারিয়েন্ট দেখতে পাই ও দামগুলো ও মোটামুটি কাছাকাছি।এএমডির রাইজেন আসার পর র‍্যাম স্পিড, র‍্যামের সংখ্যা, চ্যানেল নিয়ে হয়েছে অনেক আলোচনা, অনেক গবেষণা। আজ আমরা আরেকবার দেখবো র‍্যাম স্পিডের প্রভাব, উপকারিতা, যৌক্তিকতা আসলে কতটুকু এবং আমাদের দেশের সাধারণ ইউজারদের প্রেক্ষাপটে তা কতটুক প্রভাব ফেলে।

আমরা আজকেও কিছু বেঞ্চমার্ক দেখবো এবং সেগুলো অন্য সিস্টেমের সাথে কতটুক যায় । যেখানে প্রসেসর, গ্রাফিক্সকার্ড এর বটলনেক এর বিষয় রয়েছে সেখানে সেই বেঞ্চমার্কগুলো কতটূক খাটে সেটা নিয়েও আলোচনা করবো। সাথে থাকবে হাই স্পিড র‍্যাম ৫০০ টাকা/১০০০টাকা দিয়ে বেশি কেনা নাকি সেই টাকাটা ক্ষেত্রবিশেষে m.2 SSD এর বদলে NVMe এসএসডিতে ইনভেস্ট করা উচিত নাকি বেটার মাদারবোর্ড এমনকি পাওয়ার সাপ্লাই এ দেওয়া উচিত।

রেফারেন্স হিসেবে আমরা tech deals,ponchato,  Hardware unboxed এর বিচ্ছিন্ন বিচ্ছিন্ন কিছু বেঞ্চমার্ক রেজাল্ট নিয়েছি।

Ponchato ও tech deals এর দুইটি বেঞ্চমার্কই রাইজেন সিস্টেমে করা কিন্ত Tech Deals এর টেস্ট বেঞ্চটি একটি Ryzen 9 3900x ,2080ti ও অপরদিকে Ponchato এর টেস্ট বেঞ্চটি একটি Ryzen 5 3600, rx 5700 । দ্বিতীয়টি যেহেতু একটি অপেক্ষাকৃত affordable প্রসেসর ও গ্রাফিক্সকার্ডের প্রাক্টিক্যাল বিল্ড সুতরাং সেটির বেঞ্চমার্ক রেজাল্ট আমাদের আরো বেটার ধারণা দিবে যে সাধারণ মানুষদের মিডিয়াম/লো বাজেট পিসিতে র‍্যামের স্পিডের প্রভাব কেমন-

এপ্লিকেশন বেঞ্চমার্কসঃ

Techdeals’ 3900x-2080ti Build

Cinebench R20

 

সিনেবেঞ্চ একটি সিপিইউ বেজড এপ্লিকেশন। তাই র‍্যামের স্পিডের প্রভাব এখানে একেবারেই নেই বললেই চলে।

Blender

 

ব্লেন্ডারেও স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে স্ট্রং প্রসেসরেও র‍্যামের স্পিডের কোন প্রভাবই নেই।

7-Zip

 

7-zip এ আমরা দেখতে পাচ্ছি অদ্ভুতভাবে Combined result , compression/decompression সবক্ষেত্রেই খুবই সামান্য এবং অনেকক্ষেত্রে কম স্পিডের র‍্যামের স্কোর বেশি!!! (যদিও এখানে কিছু র‍্যামের Cache Latency বেশি)

 

Ponchato’s R5 3600-RX5700 Build:

Cinebench R20 singlecore

 

Cinebench R20 Multicore

 

ryzen 5 3600 দিয়ে টেস্টেও যথারীতি সিনেবেঞ্চ এর ক্ষেত্রে প্রায় 0% পার্থক্য দেখা যাচ্ছে।

CPU-Z

 

সিপিউ-জি এর বেঞ্চমার্কে রাইজেন ৫ ৩৬০০তেও র‍্যাম স্পিডের প্রভাব দেখা যাচ্ছে না।

7-Zip

 

সেভেন জিপ এ ryzen 9 3900x এর মত 3600 তেও সামান্য পার্থক্য দেখা যাচ্ছে , এবং কিছু অসামঞ্জস্যতাও আছে, অনেকক্ষেত্রে কম বাসের র‍্যামে স্কোর বেশি।

Vegas pro video render

 

ভিডিও রেন্ডারে ryzen 5 3600 দিয়ে 2133mhz ও 3200mhz এর মধ্যে পার্থক্য 8 সেকেন্ড। লক্ষনীয় বিষয় হচ্ছে 2400bus ও 3200bus এর মধ্যে ২ সেকেন্ড ব্যবধানে এগিয়ে আছে 2400 বাসের র‍্যামটি।

গেমিং বেঞ্চমার্কসঃ

Far Cry New Dawn

 

ফার ক্রাই নিউ ডন গেমটিতে পার্থক্য কিন্ত ফুটে উঠছে ,এখানে ২১৩৩ মেগাহার্টজ এর র‍্যাম ও ৩৬০০মেগাহার্টজ এর র‍্যামের মধ্যে এভারেজ এফপিএস পার্থক্য ১৯ ! প্রায় ২০% পার্থক্য।।এবং ১% লোতেও বেশ ১০% মত পার্থক্য দেখা যাচ্ছে।

Shadow of the Tomb Raider

 

শ্যাডো অফ দা টম্ব রাইডার এখানেও 2133 থেকে সুইট স্পট 3200 bus এ ১৩ এফপিএস এর পার্থক্য রয়েছে। কিন্ত ১% লোতে লক্ষ করলে কিন্ত দেখা যাচ্ছে 2133 ও 3200 বাসে প্রায় সমান।

Ghost Recon wildlands

 

১৪৪০পি রেজুলেশনে ঘোস্ট রেকন ওয়াইল্ডল্যান্ডস গেমটায় কিন্ত এভারেজে একদমই কোন পার্থক্য চোখে পড়ছে না । যদিও ১% লো তে 2133 থেকে সুইটস্পট 3200bus এ ৯ এফপিএস বেশি পাওয়া যাচ্ছে। ও 3600 bus এ ১৩ এফপিএস বেশি।

Overwatch

 

যখন ryzen 5 3600, rx 5700 এর মত অপেক্ষাকৃত লোয়ার বিল্ডে টেস্ট করা হচ্ছে সেখানে কিন্ত আবার আমরা দেখছি প্রায় no change. এমনকি 1% low তেও কোন দৃশ্যমান পার্থক্য নেই। অর্থাৎ এক্সপেরিয়েন্স, ল্যাগ/স্টাটার ফ্রেমড্রপ এর বিষয়গুলো থাকছে না বলা যায় লো স্পিডের র‍্যামেও।

fortnite

 

fortnite এও রাইজেন 5 3600 এর সেটাপে মোটামুটি 2133 থেকে 3200bus এ চেঞ্জ খুবই সামান্য। ১% লো তেও মাত্র ৫ এফপিএস ডিফারেন্স (যদিও মাথায় রাখতে হবে অনলাইনে রানিং গেমস বিল্ট ইন বেঞ্চমার্ক ছাড়া লাইভ গেমপ্লে দিয়ে বেঞ্চমার্ক করা কঠিন)

Apex Legends

 

আরো একটি esports title, রেজাল্ট আগের মতই।  ১% লো কিংবা এভারেজ, এফপিএস পার্থক্য প্রায় ০%

Rainbow Six Siege

 

Rainbow Six siege এর ক্ষেত্রেও আলাদা করে ব্যাখা দেওয়া মনে হয় দরকার নেই। বরং লাইভ গেমপ্লে এর জন্য ৩২০০ মেগাহার্টজ র‍্যামে উলটা ১% লো কম  দেখা যাচ্ছে। এভারেজ ও প্রায় সেম।

PUBG

 

জনপ্রিয় টাইটেল পাবজিতেও আমরা কিছু অসামঞ্জস্যতা দেখতে পাচ্ছি। কেননা ২১৩৩ থেকে ২৬৬৭ পর্যন্ত ৫ এফপিএস বৃদ্ধির পর সেখান থেকে ২৯৩৩,৩২০০ বাসে এফপিএস কম। যদিও লাইভ গেমপ্লে এর ভুমিকা আছে এতে। ১% লো তেও সামান্য পরিমাণ উন্নতি দেখা যাচ্ছে।

GTA-V

 

জিটিএ ফাইভ এখন পর্যন্ত এই দুইটি টেস্টে একমাত্র গেম হিসেবে পাওয়া গেলো যেখানে ২১৩৩/২৪০০ বাস যে সত্যিই সিস্টেমের জন্য বটলনেক তার একটি সুস্পষ্ট প্রমাণ পাওয়া যাচ্ছে। 2133 থেকে 3200 বাসে এফপিএস এর উন্নতি হয়েছে 73 থেকে 83 । অর্থাৎ অন্তত এই গেমের ক্ষেত্রে এক্সপেরিয়েন্সে যে র‍্যাম স্পিড প্রভাব ফেলতে পারে তা প্রমাণিত।

সিদ্ধান্ত নেওয়া বা ব্যাখা বিশ্লেষণের আগে আমরা আরো কিছু বেঞ্চমার্ক দেখে নিব এবারঃ

Hardware Unboxed’s 3GPU’s Special Test:

hardware unboxed এর এই বেঞ্চমার্কটি একই সাথে ৩টি ভিন্ন বাজেটের গ্রাফিক্স কার্ড ও ryzen 7 1800x প্রসেসরে ভিন্ন ভিন্ন স্পিডের র‍্যাম টেস্ট করা হয়েছে। যদিও এটি রাইজেন এর একদম প্রথম জেনারেশনের প্রসেসর এর সেটাপ কিন্ত এই সেটাপে অনেকটাই পরিষ্কার হয়ে যাবে । এবং বিশেষ করে লো বাজেট বিল্ডে প্রভাব কতটুক তা বুঝতে সুবিধা হবে।

Mass Effect Andromeda

 

একসময়ের ফ্লাগশিপ গ্রাফিক্স কার্ড GTX 1080ti দিয়েও কিন্ত এই গেমে আমরা আমরা দৃশ্যমান কোন পরিবর্তন লক্ষ করছি না।  GTX 1070 তেও সমান্তরাল এক্সপেরিয়েন্সই লক্ষ করা যাচ্ছে রেজাল্টটি থেকে।এবং মহাগুরুত্বপুর্ণ GTX 1060 তেও এভারেজ ফ্রেমরেট সেম । এখান থেকে আমরা বুঝতে পারছি যে যখন গ্রাফিক্স কার্ড এর বটলনেক এর বিষয় চলে আসবে, তখন র‍্যাম স্পিড এর প্রভাব প্রায় শুন্য।

Hitman

 

হিট্ম্যানে তুলনামুলক বেশি পার্থক্য পাওয়া যাচ্ছে। এখানে 2133 মেগাহার্টজ যে সত্যিই একটি বটলনেকের কারণ তা জিটিএ ফাইভের মত বুঝা যাচ্ছে। 1080ti দিয়ে 2133 থেকে 2666 ও 3200 মেগাহার্টজে ৯২ এফপিএস থেকে যথাক্রমে ১০৪ ও ১০৮ এফপিএস পর্যন্ত উন্নতি দেখা যাচ্ছে। অদ্ভুতভাবে gtx 1070 দিয়েও সেম । কিন্ত আমরা যখন GTX 1060 এর মত কার্ডে নেমে আসছি, GPU limited হয়ে যাওয়ার জন্য সেখানে র‍্যাম এর প্রভাব খুবই সামান্য হয়ে যাচ্ছে। 2666 থেকে 3200 bus এ ৩ এফপিএস এর গেইন একদমই চোখে পড়ার মত না।

MAFIA 3

 

জঘন্য অপ্টিমাইজেশনের সাথে আসা এই গেমটির বেঞ্চমার্ক রেজাল্ট থেকে দেখা যাচ্ছে যে র‍্যাম স্পিডের জন্য এক্সপেরিয়েন্স এ দৃশ্যমান পার্থক্য পেতে আপনাকে GTX 1080ti লেভেলের গ্রাফিক্স কার্ড ইউজ করা লাগবে।

Deus Ex:Mankind Divided

 

মোটামুটি MAFIA 3 এর মত এই গেমেও লোয়ার এন্ড গ্রাফিক্স কার্ডে ৩টি ভিন্য স্পিডের র‍্যামে ১% ও এভারেজ এফপিএস প্রায় সমান। তবে 2133 থেকে 2666 ও 3200 বাসের বেশ স্পষ্ট পার্থক্য নজরে আসে যখন ১০৮০টিআই দিয়ে টেস্ট করা হয়। এভারেজ ও ১% দুই ক্ষেত্রেই ।

Battlefield 1

 

ব্যাটেলফিল্ডের কাহিনী ও আগের দুইটার মতই। আরো বেশি করে প্রমাণ হচ্ছে যে হায়ার বাস স্পিডের র‍্যাম এর সুবিধা লো সিস্টেমে পাওয়াটা কষ্টকরই।

Ashes of the Singularity:Escalation

 

GTX 1060 তে ১% লো সমান ও এভারেজ ও প্রায় সমান হলেও GTX 1070,1080ti এ র‍্যাম স্পিডের প্রভাব বেশ ভালোভাবে লক্ষ করা যাচ্ছে এই গেমটিতে। ১৮-২০ এফপিএস পর্যন্ত এভারেজ ও ১% লো তে ডিফারেন্স পাওয়া যাচ্ছে যা বেশ গুরুত্বপুর্ণ ।

5 Games average

 

এবার আসা যাক ৫ টি গেমের এভারেজেঃ GTX 1070, 1060 দিয়ে আমরা কার্যত মেমোরি ফ্রিকোয়েন্সির কোন প্রভাব দেখতে পারছি না। GTX 1080ti দিয়ে এভারেজে ২০ এফপিএস ও ১% লো তে ১৩ এফপিএস পর্যন্ত বুস্ট পাওয়া যাচ্ছে।

উপসংহারঃ

৩টি ভিন্ন বিল্ডের পারফর্মেন্স টেস্ট এর মোট ১৫ টা গেম RTX 2080Ti+3900x এর হায়েস্ট বাজেট সেটাপ, RX 5700+ryzen 5 3600 এর হায়ার মিড বাজেট সেটাপ ও Hardware unboxed এর Ryzen 7 1800x+(gtx 1060,1070,1080ti) এর তিনটি বাজেট সেটাপের সারমর্ম মোটামুটি এরকম(এপ্লিকেশন বেঞ্চমার্ক নিয়ে আলাদা কিছু উল্লেখ করার দরকার মনে করছি না)

  • ryzen 9 3900x+2080ti দিয়েও সামান্য ১% লো এর উন্নতি ছাড়া এভারেজেও ৫/১০ পারসেন্ট এর মত পার্থক্য দেখা যাচ্ছে যা ইংগিত করে যে লো বাজেট সিস্টেমে এই ডিফারেন্স ০ তে নেমে আসতে পারে।
  • Ryzen 5 3600+5700। আমার মনে হয় এই সেটাপটি ২০২০ সালে এসে সবথেকে বেশি প্রাক্টিকাল। না এটি এন্থুসিয়াস্ট লেভেল পিসি না এটি লো বাজেট পিসি। এটা মোটামুটি মাঝামাঝি কিছু একটা। এখানেও কিন্ত কিছু গেমে ১/২ এফপিএস কম বেশি এভারেজে ও ১% ও সমান। GTA একমাত্র গেম যেখানে র‍্যামের বাস স্পিড স্পেশালি 2133 এর দুর্বলতা স্পষ্ট হয়েছে। বাকি সবগুলো গেমে র‍্যামের প্রভাব প্রায় শুন্য। এতে আমরা আরেকবার ইঙ্গিত পেলাম যে আমরা যদি rx 590/ ryzen 5 2600/ 9400f দিয়ে বিল্ড করি সেখানেও প্রভাব আরো কমে আসবে রিয়েল লাইফে।
  • Hardware unboxed এর টেস্টটিতে ryzen 7 1800x এর সাথে GTX 1060,1070,1080ti Paired করে শূধুমাত্র ফ্লাগশিপ গ্রাফিক্সকার্ডের সিস্টেমটিতেই উল্লেখযোগ্য এফপিএস বুস্ট পাওয়া গিয়েছে।

সিদ্ধান্তঃ

সিদ্ধান্তটি মোটামুটি খুবই সোজাসাপ্টা। যে এখনো হয়তো আমাদের হাই ফ্রিকোয়েন্সির র‍্যাম অত্যাবশ্যকীয় হয়ে উঠেনি। বিশেষ করে উপরের সবগুলো টেস্টে এটিই প্রতিফলিত হয় যে আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে সাধারণত যেসব প্রসেসর ,গ্রাফিক্সকার্ড ইউজ করা হয়ে থাকে উভয়ই বটলনেক ঘটায় সুতরাং এক্ষেত্রে র‍্যাম স্পিড কাজে আসে না (৯০ঁ% ক্ষেত্রে) ।

কত ফ্রিকোয়েন্সির র‍্যাম কিনবো?some cases:

এক্ষেত্রে আপনার বাজেটের উপর অনেক কিছুই নির্ভর করছে। তবে এই পোস্ট মুলত তাদের জন্য উপকারী হবে যারা ভেবে বসে ছিলেন যে বাস স্পিড অনেক অনেক বেশি প্রভাব ফেলে গেমিং এ ।বিষয়টি তা নয়। আপনার যদি বাজেট যথেষ্ট ফ্রি হয় তো আপনি অবশ্যই মাদারবোর্ড সাপোর্ট করলে হাই স্পিড র‍্যাম কিনবেন এমনকি আরজিবি র‍্যাম ও নিতে পারেন। 3200 মেগাহার্টজ র‍্যাম এখন সুইটস্পট বলা যেতে পারে। 2133 একদমই পিছিয়ে পড়ছে এটি এভয়েড করাই ভালো। ২৬৬৬ ও আপনার এক্সপেরিয়েন্স এ বাধ সাধবে না। বাজেট ফ্রি হলে আপনি অবশ্যই যেতে পারেন ভাল স্পিডের র‍্যামের দিকে, তবে তার জন্য কোন কিছুতে কম্প্রোমাইজ করবেন কি না এবং সেই সিদ্ধান্ত কতটুক যুক্তিযুক্ত  তা নিয়ে আলোচনা করা হলোঃ

case 1:motherboard vs ram-

৫০০/১০০০ টাকা দিয়ে ভালো র‍্যাম কিনতে গিয়ে অপেক্ষাকৃত কমদামী মাদারবোর্ড কেনাটা ভুল প্রমাণ হতে পারে। মাদারবোর্ডের VRM অনেক গুরুত্বপুর্ণ একটি বিষয় ও আপনার কম্পনেন্টগুলোর স্বাস্থ্য, ওভারক্লক এর সিকিউরিটি ,থার্মাল পারফর্মেন্স,পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন এগুলো নির্ভর করে VRM এর উপর। কমদামী মাদারবোর্ডের VRM ভালো নাও হতে পারে সুতরাং পারফর্মেন্স পাওয়ার আশায় মাদারবোর্ডে কস্ট কাটিং সবক্ষেত্রে ভালো নয়।

Case 2:SSD vs Ram-

১০০০টাকা বেশি দিয়ে 2666 এর বদলে 3200 bus এর র‍্যাম নিবেন এবং M.2 NVMe এর বদলে M.2 SATA এসএসডি নিবেন । এই কস্ট কাটিংটাও আমার মতে খুবই বাজে ডিসিশন। র‍্যাম স্পিড কিরকম প্রভাব ফেলে, কোন ধরনের সিস্টেমেই ফেলে তা নিয়ে উপরে বিস্তর আলোচনা হয়েছে। একটি SATA SSD আর একটা NVMe এসএসডি এর পারফর্মেন্স এর পার্থক্য আপনি রিয়েল লাইফে অনেক অনেক বার পাবেন । SATA SSD এর কিছুদিন পর পারফর্মেন্স ফল করা ছাড়াও পাফর্মেন্স এ 500mbps এর লিমিটেশন এর মত সমস্যা আছে কিন্ত NVMe তে আপনি ২/৩ গুন বেশি স্পিড পাবেন।

case:3 Casing vs Ram-

কস্ট কাটিং এর আরেকটি ভুল প্লান এটিও হতে পারে। যে দুই চারশো টাকা বাচাতে একটি বাজে এয়ারফ্লো এর কেসিং, যার ভেতরে জায়গা ও কম, ফ্যান এর সংখ্যা ও কম এরকম কিছু নিলে আপনাকে ভুগতে হতে পারে। আপনার সকল কম্পনেন্ট এর স্বাস্থ্য নির্ভর করে কেসিং এর মধ্যেই, কারণ কতটুক বাতাস ভেতরে যাচ্ছে ও গরম বাতাস বাইরে পাস হচ্ছে তা কেসিং এর উপর ডিপেন্ড করে, কেসিং এর মধ্যে থাকা ফ্যানের উপর ডিপেন্ড করে। কেসিং খারাপ হলে তার প্রভাব আপনার গ্রাফিক্স কার্ড,প্রসেসর ,মাদারবোর্ড সবকিছুর উপর পড়বে ।

Case 4:Power supply vs ram-

পারফর্মেন্স এর সাথে সম্পর্কিত না হয়েও এটি হতে পারে আপনার সবথেকে বাজে সিদ্ধান্ত । ৫০০/৬০০টাকা র‍্যামে না ঢেলে বেশি ওয়ারেন্টি ওয়ালা পাওয়ার সাপ্লাই বা bronze certified পাওয়ার সাপ্লাই নেওয়াটা আপনার সবগুলো কম্পোনেন্ট এর জন্য সেফ হবে।

Bottom Line:

এখনো র‍্যাম স্পিড খুবই গুরুত্বপুর্ণ ইস্যু হয়ে যায়নি বাজেট ইউজারদের জন্য। আপনার ভালো গ্রাফিক্স কার্ড ও প্রসেসর এর বিল্ড থাকলে সেই ক্ষেত্রেই কেবল এই বিষয়টি প্রভাব ফেলার মত। অন্যথায় আপনি এসএসডি/কেসিং/মাদারবোর্ডের উপর গুরুত্ব বেশি দিতে পারেন টাইট বাজেটের ক্ষেত্রে।

benchmark source: Hardware Unboxed ,Tech Deals , Ponchato

র‍্যানসামওয়্যারে আক্রান্ত হলে কিভাবে ফাইল উদ্ধার করতে পারেন তা জেনে নিন এখান থেকেঃ

র‍্যানসামওয়্যারে আক্রান্ত হলে করণীয়

এসএসডি কেনার আগে এসএসডি সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা পেতে চাইলে পড়ে নিন এই লেখাটিঃ

এসএসডিঃজেনে কিনুন

এসএসডি কোনটি কিনবেন এ ব্যাপারে কনফিউজড হয়ে থাকলে আমাদের আর্টিকেলটি পড়তে পারেনঃ

এসএসডি বায়িং গাইড ২০২০