এএমডির রাইজেন প্রসেসরের জন্য সঠিক মাদারবোর্ড সিলেক্ট করা অনেক সময় খুবই সহজ এবং অনেক সময় খুবই কঠিন একটি কাজ হয়ে দাঁড়াতে পারে। কারণ এক একটি মাদারবোর্ডে এক এক ধরণের ফিচার দেওয়া থাকে। ইউএসবি সার্পোট, কতগুলো গ্রাফিক্স কার্ড আপনি ইন্সটল করতে পারবেন থেকে শুরু করে ওভারক্লকিং করতে পারবেন কি পারবেন না সেটাও কিন্তু আপনার রাইজেন মাদারবোর্ডগুলোর মডেলের উপর নির্ভর করবে।

আজকের পোষ্টে আমি কথা বলবো AM4 চিপসেটের X470, X370, B450 এবং A320 মাদারবোর্ডগুলোকে নিয়ে। তো চলুন ভূমিকায় আর বেশি কথা না বাড়িয়ে মূল পোষ্টে চলে যাই:

A320 মাদারবোর্ড

এএমডির লেটেস্ট AM4 মাদারবোর্ড চিপসেটের সবথেকে বেসিক মডেল হচ্ছে এই A320 মাদারবোর্ড। যারা বাজেটের মধ্যে এএমডির লেটেস্ট প্রজন্মের প্রসেসর ব্যবহার করতে চান তাদের জন্যই এই মডেলটি উপযুক্ত। কিন্তু যারা গেমিংয়ের জন্য এএমডি পিসি বিল্ড করবেন তাদের জন্য এই মাদারবোর্ডটি উপযুক্ত নয়, কারণ প্রতিটি রাইজেন প্রসেসর ওভারক্লকিং করা যায় কিন্তু এই A320 মাদারবোর্ডটি ওভারক্লকিং ফিচারটি সার্পোট করে না। তাই বাজেটের মধ্যে থেকেও যদি প্রসেসরের ওভারক্লকিং ফিচারটি আপনি ব্যবহার করতে চান তাহলে অন্য মডেলের মাদারবোর্ড দেখুন। এই মাদারবোর্ডে আপনি পাবেন একটি ২য় প্রজন্মের USB 3.1 10Gbps পোর্ট, একটি প্রথম প্রজন্মের USB 3.1 5Gbps পোর্ট এবং ম্যানুফেক্চারের মডেল ভেদে সর্বোচ্চ ৬টি USB 2.0 পোর্ট এই মাদারবোর্ডে আপনি পাবেন। এছাড়াও এই চিপসেটটি একজোড়া SATA III এবং SATA Express কানেক্টশন সার্পোট করবে। অন্যদিকে পাবেন সর্বোচ্চ চারটি PCIe gen 2 ল্যানস। এখানে আপনি M.2 SSD, বিভিন্ন নেটওর্য়াকিং কার্ডস ইত্যাদি লাগাতে পারবেন। বাংলাদেশে এই মডেলটির দাম শুরু হয় ৫,৭০০ টাকা থেকে।

B350 এবং B450 মাদারবোর্ড

বাজেটের মধ্যে যারা যারা এএমডি গেমিং পিসি বানাতে চান তাদের জন্য এই মাদারবোর্ডগুলো সেরা। বিশেষ করে যারা পিসিতে একটি গ্রাফিক্স কার্ড ব্যবহার করেন এবং একই সাথে সিপিইউ ওভারক্লকিং ফিচারটিও ব্যবহার করেন তাদের জন্য এই B350 এবং B450 মাদারবোর্ডসগুলো উপযুক্ত। আগের A320 মাদারবোর্ডের থেকে B350 মাদারবোর্ডে আপনি একটি এক্সট্রা 10Gbps USB 3.1 পোর্ট পাবেন, পাবেন দুটি এক্সট্রা ফাস্ট PCIe ল্যানস যেখানে উচ্চগতির SSD যেমন Samsung 960 Pro ব্যবহার করতে পারবেন। আর মূল পার্থক্য হিসেবে ওভারক্লকিং ফিচারটি আপনি পেয়ে যাবেন B350 মাদারবোর্ডে।

B350 চিপসেটের মূল ড্রব্যাক হলো এখানে আপনি Multi-GPU সেটআপ ব্যবহার করতে পারবেন না। তবে কিছু কিছু B350 মডেলে AMD CrossFire multi-GPU কনফিগারেশন চালাতে পারলেও সেটায় আপনার নির্ভর করা উচিত হবে না। কারণ AMD থেকে অফিসিয়ালভাবে বলে রাখা হয়েছে যে, শুধুমাত্র X470, X370 এবং X300 চিপসেটগুলো দুটি PCIe 3.0 x8 গ্রাফিক্স কার্ড স্লট থাকছে যেগুলো সরাসরি প্রসেসরের সাথে একসেস দিয়ে রাখা হয়েছে; এই মডেলগুলো ছাড়া অন্য কোনো AM4 চিপসেটে Multi-GPU সেটআপ করা হলেও সেখানে সমান PCI3 3.0 ব্যান্ডউইথ পাওয়া যাবে না এবং ওই কনফিগারেশনগুলো অফিসিয়াল ভাবে সার্পোটেড হবে না। B350 মডেলের মাদারবোর্ডগুলো দাম বাংলাদেশে আপনি ৮,২০০ টাকা থেকে পেয়ে যাবেন।

অন্যদিকে ২য় প্রজন্মের রাইজেন চিপসগুলোর সাথে B450 মাদারবোর্ডটি লঞ্চ করা হয়। এই মাদারবোর্ডে আপনি B350 এর সকল ফিচারই পাবেন কিন্তু এখানে এক্সট্রা ফিচার রয়েছে, এগুলো হচ্ছে B450 মাদারবোর্ডে আপনি AMD micro-tiering StoreMI টেকনোলজি পাবেন যেখানে একাধিক স্টোরেজ সোর্সকে একটি বড় ভাচূর্য়াল ড্রাইভে সম্মনিত করে ব্যবহার করার সুযোগ থাকবে। এক্সট্রা ফিচারটি যদি আপনার পছন্দ না হয় কিংবা প্রয়োজন না পড়ে তাহলে B350 এবং B450 এর মধ্যে তেমন কোনো পার্থক্য আপনি খুঁজে পাবেন না। তাই ৪৫০ এর জায়গায় ৩৫০ নিয়ে কিছুটা বাজেট বাঁচাতে পারেন আপনি।

X370 মাদারবোর্ড

এই মাদারবোর্ডটি নিয়ে অনেকেই কনফিউশনে থাকেন। প্রথম কারণ হচ্ছে এটা একটি হাই এন্ড মাদারবোর্ড এবং এই মাদারবোর্ড থেকে মাত্র ২/৩ হাজার টাকা বেশি খরচ করলে আপনি X470 মাদারবোর্ডটি পেয়ে যাবেন। বাংলাদেশে X370 মাদারবোর্ডটির দাম শুরু হয় ১৪ হাজার ৫০০ টাকা থেকে আর ১৬ হাজার টাকায় আপনি X470 মাদারবোর্ড পেয়ে যাবেন! মাত্র ১৫০০ টাকার পার্থক্যের জন্য বেটার এবং আপগ্রেডেড মাদারবোর্ড X470 নেওয়াটাই অধিকাংশ সময় উচিত কাজ হিসেবে গেমাররা সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন। তবে মেনুফেকচার কোম্পানি ভেদে X370 এবং X470 মাদারবোর্ডগুলোর দাম ২১,৫০০ এবং ২৩ হাজার টাকার পর্যন্ত চলে যেতে পারে।

B350 মাদারবোর্ড থেকে X370 মাদারবোর্ডে এক্সট্রা হিসেবে আপনি পাবেন ৪টি অতিরিক্ত 5Gbps USB gen 1 পোর্টস, দিগুণ SATA III কানেক্টশন, দুটি অতিরিক্ত PCIe Lanes এবং মূল আকর্ষণ মানে Dual PCIe 3.0 x8 স্লট যেটায় আপনি ক্রসফায়ার এবং SLI multi-GPU সেটআপ করতে পারবেন। এছাড়াও পাওয়ার ফ্রেজ এবং উন্নত মানের হার্ডওয়্যার থাকায় এই মাদারবোর্ডে B350 থেকে উন্নত ওভারক্লকিং পারফরমেন্স আপনি পাবেন। অন্যদিকে হাই এন্ড মাদারবোর্ড হওয়ায় লেটেস্ট বায়োস আপডেট সবার আগে আপনি পেয়ে যাবেন।

X470 মাদারবোর্ড

এএমডি এবং এর সহযোগী প্রতিষ্ঠানগুলো এ বছরের এপ্রিল মাসে ২য় প্রজন্মের রাইজেন প্রসেসরের সাথে এই X470 মাদারবোর্ডটি বাজারে ছেড়েছে। বর্তমানে AM4 চিপসেটের লেটেস্ট মাদারবোর্ড হচ্ছে এই X470 । মাদারবোর্ডটি অধিকাংশ ক্ষেত্রেই X370 এর মতোই কিন্তু কিছুটা আপগ্রেড থাকছে এই মাদারবোর্ডে। তাই যারা যারা X370 বা হাই এন্ড এএমডির মাদারবোর্ড নেবার কথা ভাবছেন তাদেরকে আপনি রেকোমেন্ড করবো ২/৩ হাজার টাকা বেশি খরচ করে এই X470 বা লেটেস্ট মডেলটিই ব্যবহার করার জন্য।

X470 মাদারবোর্ডে আপনি ২৯৩৩ মেগাহার্জের মেমোরি স্পিড সার্পোট পাবেন, যেখানে X370 মডেলগুলোতে ২৬৬৭ মেগাহার্জ পর্যন্ত মেমোরি স্পিড সার্পোট পেতেন তবে ওভারক্লক করে এটাকে অতিক্রম করা যাবে। তবে এএমডি বলছে যে X470 মাদারবোর্ডটি তাদের ২য় প্রজন্মের রাইজেন প্রসেসরের হাই ক্লক স্পিডকে আরো সুন্দর করে হ্যান্ডেল করতে পারবে। মানে হচ্ছে X370 এর থেকে X470 তে আপনি কিছুটা পারফরমেন্স বুস্ট পাবেন তবে অতটা পাবেন না। এছাড়াও B450 মাদারবোর্ডে StoreMI ফিচারটিও আপনি এই X470 মাদারবোর্ডে পাবেন। তো শেষ কথা হচ্ছে যে আপনি হাই এন্ড এএমডির গেমিং পিসি বিল্ড করতে চাচ্ছেন সেখানে হাজার দুয়েক টাকা বেশি খরচ করে লেটেস্ট মাদারবোর্ডটিই নেওয়া শ্রেয় হবে। তবে যারা ইতিমধ্যেই X370 মাদারবোর্ডটি ব্যবহার করছেন তাদের জন্য এখনই X470 তে আপগ্রেড করার প্রয়োজন নেই।

Small-form-factor মাদারবোর্ড

AM4 সকেটে ছোট সাইজের মাদারবোর্ডসও রয়েছে যেগুলো মিনি পিসির জন্য নির্মিত হয়েছে। এই মিনি মডেলের মধ্যে রয়েছে X300 এবং A300/B300 । এই SFF চিপসেটে আপনি রেগুলার সাইজের চিপসেটের থেকে অতিরিক্ত কোনো ফিচার পাবেন না বরং রেগুলার সাইজের থেকে আরো কম সংখ্যক র‌্যাম স্লট, PCIe স্লট এবং অনান্য Tweaks কেও অপটিমাইজ করা হয়েছে সাইজে ছোট করার জন্য। ছোট সাইজের X300 এবং A300/B300 এর মধ্যে মূল পার্থক্য হচ্ছে X সিরিজটি গেমিংয়ের জন্য অপটিমাইজ করা হয়েছে, মানে X সিরিজে আপনি ওভারক্লকিং এবং Dual PCIe 3.0 ফিচারগুলো পাবেন।

পরিশিষ্ট

আজকের পোষ্টে এএমডির নতুন প্রজন্মের মাদারবোর্ডগুলোর সম্পর্কে আপনাকে প্রাথমিক ধারণা দেবার চেষ্টা করেছি আমি। তাই শুধুমাত্র এই পোষ্টটি দেখেই কোন মাদারবোর্ডটি কিনবেন সেটা ফাইনাল না করে নিজে কম্পিউটার স্টোরগুলো ঘুরে ঘুরে আপনার পছন্দ এবং প্রয়োজন মতো মডেলটি বেছে নিতে হবে। তবে মনে রাখতে হবে যে, মডেল একই থাকলেও ইন্টেল মাদারবোর্ডের মতোই মেনুফেকচার কোম্পানি ভেদে বিভিন্ন ফিচারের এদিক সেদিক হতে পারে, এ কারণেই একই মডেলের মাদারবোর্ডের কোম্পানি ভেদে দাম ভিন্ন হয়ে থাকে। এছাড়াও RGB লাইটিং, হাই কোয়ালিটি অডিও, ওয়ান বাটন ওভারক্লকিং ইত্যাদি প্রিমিয়াম ফিচারগুলো কিন্তু শুধুমাত্র নিদিষ্ট কিছু ব্রান্ডের (যেমন Gigabyte, Asus ইত্যাদি) মাদারবোর্ডেই আপনি পাবেন।

আর চাইলে পড়ে আসতে পারেন সিপিউ বেঞ্চমার্ক নিয়ে ইন্টেলের কারচুপির খবর।