কেন এই Gamdias Zeus M1 মাউস রিভিউ?

প্রত্যেক গেমারেরই ইচ্ছা থাকে একটি গেমিং মাউস দিয়ে গেম খেলার। ৫/৬০০ টাকা দিয়ে যেমন গেমিং মাউস পাওয়া যায় না তেমনি রেজার বা লজিটেকের মত ব্র্যান্ডের ৭/৮০০০ টাকা দিয়ে গেমিং মাউস কেনার অবস্থাও অনেকের থাকে না। মার্কেটে দেড় দুই হাজার টাকা দিয়ে গেমিং মাউস আপনারা হয়ত কিনতে পাবেন কিন্তু সেই মাউসগুলোর সীমাবদ্ধতাও অনেক। উল্লেখযোগ্য ফিচার এই বাজেটের গেমিং মাউসে সাধারণত পাওয়া যায় না। তাই যারা ফিচারবহুল গেমিং মাউস কিনতে চাচ্ছেন কিন্তু বাজেট নিয়ে টানাটানি তাদের জন্য একটি অপশন হতে পারে আমাদের আজকের শিকার Gamdias Zeus M1 গেমিং মাউসটি।  এর দাম পড়বে ৩১৫০ টাকা, কোথায় পাওয়া যাবে তা জানতে রিভিউয়ের শেষে থাকা লিঙ্কে ক্লিক করুন।

আনবক্সিং

 

 

 

বাক্সটি দেখলেই আপনি বুঝতে পারবেন Gamdias এখানে আরজিবি ফিচারের দিকেই বেশি কন্সেন্ট্রেট করেছে।প্যাকেট খুললেই পেয়ে যাবেন মাউসটি আর সাথে পাবেন ইউজার ম্যানুয়াল গাইড যাতে আরজিবি লাইটিং কন্ট্রোল, ডিপিআই চেঞ্জ, সফটওয়্যার ইউস ইত্যাদি নিয়ে টিউটোরিয়াল দেয়া আছে। আর যদি ইউজার ম্যানুয়াল পড়তে না চান তাহলে প্যাকেট থেকেই বেশির ভাগ ফিচার ও কন্ট্রোল সম্পর্কে জানতে পারবেন। যারা স্টিকার বা অন্যান্য এক্সেসরিজ এর আশায় বসে আছেন, তাদের জন্য থাকছে আমার গভীর সমবেদনা।

মাউসের ফিচার

মূল রিভিউ শুরু করার আগে দেখে নেয়া যাক কি কি ফিচার পাচ্ছেন Gamdias Zeus M1 গেমিং মাউসটিতে

Advanced Ergonomic Design

Pixart PMW3820 Optical Gaming Sensor with up to 1000 Hz refresh rate

10 Million clicks lifespan

Up to 7000 DPI with customizable six stage DPI change

Fully customizable 8 smart keys

1.8 meter/ 6 ft long breaded cable

Weight tuning system (Changeable weights up to 10 gms)

Double level RGB lighting

Full UI control with Gamdias’s own Hera software

এবার আসা যাক মূল রিভিউতে।

রিভিউ

বিল্ড

মাউসটির গড়ন দেখে আপনার হয়ত একটি বিশেষ জাতের কালো বিষধর সাপের কথা মনে পরে যেতে পারে কিন্তু সাইজে এটি তার থেকে কিছুটা ছোট।

১১৮ বাই ৬৭ বাই ৩৮.৫ মিমি. ডাইমেনশনের এই আরগোনমিক ডিজাইনের অপটিক্যাল মাউসটিকে পাম, ফিঙ্গারটিপ ও ক্ল ৩ টি গ্রিপ স্টাইলেই টেস্ট করা হয়েছে। যারা ক্ল গ্রিপার আছেন তাদের হাতে এই মাউসটি কমফোর্টেবল হতে একটু সময় নেবে, কিন্তু ফিঙ্গারটিপ ও পাম গ্রিপার যারা আছেন কিছুদিন ব্যাবহারেই তাদের হাতের নাগালে এসে যবে এই মাউসটি। তবে গেমিং মাউস হিসেবে এর সাইজ তুলনামুলকভাবে ছোট হবার কারণে বড় হাতের মানুষদের বলব এটা এভয়েড করার জন্য। বলে রাখা ভাল এই মাউসকে তৈরি করা হয়েছে সম্পূর্ণ ডানহাতিদের জন্য।

RGB লাইটিং

প্যাকেট দেখেই যখন বুঝতে পারা গিয়েছে মাউসটিতে ডাবল লেভেল আরজিবি লাইটিং রয়েছে তাহলে আর ডিস্কানেক্টেড অবস্থায় রাখবেন কেন? মাউসকে কানেক্ট করলেই সাথে সাথে ডিফল্ট আর জিবি লাইটিং স্টাইল্টি পেয়ে যাবেন। আলো জালানো অবস্থায় এর সৌন্দর্য কিছুটা কম লাগবে কিন্তু আশে পাশের লাইট বন্ধ করে দিয়ে যদি অন্ধকারে দেখেন তাহলে এর সৌন্দর্যে বাহবা বলা ছাড়া আর কিছু করার থাকবে না। এছাড়া গামডিয়াসের নিজস্ব হেরা সফটওয়্যার দিয়ে আপনি মাউসের ৮ টি লাইটিং স্টাইল সাইকেল করতে পারবেন।

এছাড়াও এই হেরা সফটওয়্যার দিয়ে আপনি মাউসের ডিপিআই, সেন্সিটিভিটি, রিফ্রেশ রেট ইত্যাদিও খুব সহজে চেঞ্জ করে নিতে পারবেন।

বাটন

লেফট ও রাইট ক্লিক সহ এই মাউসে মোট ৮ টি সম্পূর্ণ প্রোগ্রামেবল বাটন রয়েছে। পাশের ২ টি বাটন ফরওয়ার্ড ও ব্যাকওয়ার্ড এবং স্ক্রল হুইলের নিচের ৩ টি বাটনে যথাক্রমে ডিপিআই আপ, ডাউন ও সাইকেল এই ৩ টি কাজের জন্য ডিফল্ট প্রোগ্রাম করা আছে। মাউসের ডিপিআই যে চেঞ্জ হচ্ছে সেটা আপনি কিভাবে বুঝতে পারবেন? প্রত্যেক ডিপিআই স্টেজের জন্য নিচের মাঝখানের অংশে থাকা লোগোতে ৬ ধরণের লাইট এসাইন করা আছে। লোগোটি লাল হবে যখন ডিপিআই সবচেয়ে কম থাকবে আর বেগুনি হয়ে উঠবে যখন ডিপিআই সবচেয়ে বেশি থাকবে।

গ্রিপঃ

মাউসের দুপাশে রাবার গ্রিপ দেয়া আছে। গ্রিপের ধরণ অনেকটা সেই কালো সাপের মতই, কিন্তু এর গ্রিপের কোয়ালিটি সেই সাপের থেকে কোন অংশে কম নয়। টানা দেড়/দুই ঘন্টা গেমিং এর পরেও আঙ্গুলের মধ্যে কোন অস্বস্তিকর ফিলিং আসে নি।

ওয়েইট টিউনিং

এই মাউসের অন্যতম উল্লেখযোগ্য ফিচার হচ্ছে এর ওয়েইট টিউনিং সিস্টেম। মাউসের তলায় আপনি ডিটাচেবল কভার দেখতে পাবেন। তার নিচে পাবেন দুটি ৫ গ্রামের মডিউল। আমাদের রিভিউ করা মাউসটির ওজন ক্যাবল ছাড়া আর দুটি মডিউল সহ ১১৪ গ্রাম ছিল। এই মাউসকে আপনি ১০৯ এবং ১০৪ গ্রাম ওজনেও ব্যাবহার করতে পারবেন। সাধারণভাবে এই ওয়েট এডজাস্টমেন্ট ইম্পরট্যান্ট না মনে হলেও যারা হেভি কম্পিটিটিভ গেমার আছেন তারাই বলতে পারবেন মাউস মুভমেন্টের জন্য এর ওজন কতটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

সেন্সিটিভিটি ও ডিপিআই

ডিপিআই ও সেন্সিটিভিটি চেক করার জন্য এই মাউসটিকে সি এস গো, পালাডিন্স, পি ইউ বি জি , জিটিএ ৫, দা উইচার ৩, ডুম ও ডোটা ২ এই ৭ টি গেমের মধ্য দিয়ে টেস্ট করা হয়। যদিও অফিসিয়ালি এই মাউসটি ৮০০ থেকে ৭০০০ ডিপিআই পর্যন্ত সাপোর্ট করে আপনি হেরা সফটওয়্যার দিয়ে মাউস এক্সেলারেশন আপ বা ডাউন করে ৩০০ থেকে মেসিভ ১০০০০ ডিপিআইতে খেলার অভিজ্ঞতা পাবেন। এছাড়া এতে ব্যাবহার করা Pixart PMW3820 Optical Gaming Sensor এবং ১ মিলি সেকেন্ড রেসপন্স টাইম আপনাকে নিশ্চিত করবে প্রতিটি মুভ ও ক্লিকের সাথে সাথেই যেন রেজাল্ট পেয়ে যান। হাইলি কম্পিটিটিভ থেকে জাস্ট কেজুয়াল গেমিং কোন ক্ষেত্রেই ইনপুট ল্যাগ চোখে পরে নি। এমনকি সি এস গো তে ১৮০ এবং ৩৬০ টার্নও খুব সহজেই করা গিয়েছে।

ওভারঅল মতামত

সবশেষে বলা যায় মাউসের বিল্ডে সামান্য কিন্তু ইগ্নোরেবল ফল্ট থাকলেও এর গ্রিপ কোমফরট, গ্রেট গেমিং সেন্সর, হাই ডিপিআই, চেঞ্জেবল ওয়েট এবং আর জিবি লাইটিং মাউসটিকে অনেকটাই ব্যাং ফর ইউর বাক করে তোলে। আপনারা যারা সাড়ে ৩ হাজার টাকার রেঞ্জে গেমিং মাউসের সন্ধানে আছেন তারা নিজেদের রাডারে রাখতে পারেন Gamdias Zeus M1 গেমিং মাউসটিকে।

Gamdias Zeus M1 গেমিং মাউসটি কিনতে এখানে ক্লিক করুন

আশা করি রিভিউটি আপনাদের ভাল লেগেছে। এই মাউস বা অন্যান্য যে কোন কিছু নিয়ে যদি আপনার কোন মতামত বা অভিযোগ থাকে অবশ্যই তা জানান কমেন্ট বক্সে। আপনারা সবাই ভাল থাকুন, সুস্থ থাকুন আর সঙ্গে থাকুন পিসিবি বিডির সাথেই।