Corsair Spec-05! Successor of Spec-04

করসেয়ার রিলিজ করেছে তাদের বাজেট অরিয়েন্টেড Corsair Spec-05 গেমিং চ্যাসিস।

করসেয়ারের Spec সিরিজের চ্যাসিসগুলো সব সময়ই বাজেট অরিয়েন্টেড হয়ে থাকে। প্রায় এক বছর আগে করসেয়ার তাদের Spec-04 চ্যাসিস রিলিজ করে। হাই এন্ট্রি লেভেল বাজেটের মধ্যে প্রিমিয়াম লুক, ফিল ও ফিচার থাকার কারণে বাজেট সিস্টেম বিল্ডারদের কাছে অনেক জনপ্রিয়তা লাভ করে এই চ্যাসিস। তারই বংশধর হিসেবে করসেয়ার এবছর বাজারে এনেছে তাদের নতুন বাজেট কিলার Corsair Spec-05 কেসিং। আন্তর্জাতিক বাজারে এর দাম পরবে ৫০ ডলার তবে বাংলাদেশে আসলে তা কত হবে সেটা এখন বলা যাচ্ছে না।

Specification

Body Design

Corsair Spec-05 কেসিংকে তৈরি করা হয়েছে ফুল স্টিল দিয়ে। Spec-04 ভিন্ন ভিন্ন কালার ভ্যরিয়েন্টে আসলেও এটি আসছে ফুল ব্ল্যাক কালারে।

ফ্রন্ট প্যানেলকে অনেকটা Spec-04 এর মত ডিজাইন দেয়া হয়েছে তবে পার্থক্য অনেকাংশেই চোখে পরার মত। ফ্রন্ট প্যানেলে আপনারা পাবেন পাওয়ার ও রিসেট সুইচ, হেডফোন ও মাইক্রোফোন পোর্ট, একটি USB 3.0 এবং প্রথমবারের মত কোন বাজেট চ্যাসিসে আমরা দেখতে যাচ্ছি USB 3.1। তবে এটি কেবল Type-A হবে।

এছাড়া চ্যাসিসটিকে সাপোর্ট দেবার জন্য নীচে দেয়া হয়েছে চারটি বৃত্তাকার রাবার ফিট। এছাড়া সাইড প্যানেলে দেয়া হয়েছে ক্লিয়ার আক্রিলিক উইন্ডো। আপনি যদি আপনার সেটআপকে আরজিবিময় করে তুলতে চান তাহলে তা লাইটিং ব্রাইটনেস তেমন একটা কমাবে না। তবে ৫০ ডলারের মধ্যে যা অফার করা হচ্ছে টেম্পারড গ্লাস আশা করা এক্ষেত্রে বোকামি হবে।

Interior Design

Spec-04 এর মত Corsair তাদের Spec-05 চ্যাসিসের ইন্টিরিওর ডিজাইনে কোন প্রকার কমতি রাখার চেস্টা করেনি। মাদারবোর্ডের কুলিঙ্গের জন্য যথেস্ট পরিমাণ জায়গা করা হয়েছে। এবং ক্যাবল টাই আপের জন্যও যথেস্ট পরিমাণ জায়গা রাখা হয়েছে। তবে বাজেট চ্যাসিস হওয়ায় কোন রাবার গ্রামিট দেয়া হয় নি। উল্লেখ্য এই চ্যাসিসে কেবল ATX অথবা Micro ATX মাদারবোর্ড সাপোর্ট করবে।

তবে এখানে করসেয়ার কোন পিএসইউ শ্রাউড দেয় নি। কেসিঙে দেয়া হয়েছে রিমুভেবল হার্ডড্রাইভ কেজ যাতে সাপোর্ট করবে ২ টি ৩.৫ ইঞ্চি হার্ডডিস্ক অথবা ৩ টি ২.৫ ইঞ্চি হার্ডডিস্ক বা এস এস ডি।

তবে আপনার চ্যাসিস যাতে ধুলাবালি মুক্ত থাকে এবং পিএসইউও যেন ধুলার আক্রমণে না পরে সেজন্য ফ্রন্ট প্যানেল এবং পিএসইউ মাউন্টের নীচে দেয়া হয়েছে ডাস্ট ফিল্টার। এর মধ্যে মাউন্টের নীচের ডাস্ট ফিল্টারটি রিমুভ করা যাবে।

Cooling Support

লুকের পাশাপাশি যে কোন চ্যাসিসের সব থেকে ইম্পরট্যান্ট জিনিসটি হচ্ছে এর ইন্টারনাল কুলিং সিস্টেম। তবে করসেয়ার এখানে লিকুইড এবং এয়ার উভয় ধরণের কুলিং কম্প্যাটিবিলিটি রেখেছে।

ফ্রন্ট প্যানেলে ফ্যান সাপোর্ট করবে ২ টি ১২০ মিমি. এর। তবে হার্ডড্রাইভ কেইজটি সরিয়ে নিলে ৩ নাম্বার ১২০ মিমি. অথবা ২ টি ১৪০ মিমি. ফ্যান লাগাতে পারবেন।

উপরে লাগাতে পারবেন ২ টি ১২০ মিমি. এর ফ্যান এবং পেছনে লাগাতে পারবেন ১ টি ১২০ মিমি. ফ্যান। এখানে টপ ও রিয়ারে অবশ্য ১৪০ মিমি. ফ্যান সাপোর্ট দেয়া হয় নি।

আর যদি লিকুইড কুলিং করতে চান তাহলে উপরে লাগাতে পারবেন সর্বচ্চো ২৪০ মিমি. রেডিয়েটর এবং পেছনে ১২০ মিমি. রেডিয়েটর। সামনে কোন রেডিয়েটর সাপোর্ট দেয়া হয় নি।

Overall

বাজেট চ্যাসিস হলেও করসেয়ার তাদের Spec সিরিজে তেমন কোন কমতি ফিচার সাধারণত দিয়ে থাকে না। বাংলাদেশের বাজারে এলে এটি হতে পারে বাংলাদেশের হাই রেঞ্জ এন্ট্রি লেভেল অর্থাৎ ৫০/৬০ হাজার টাকার বাজেটের পিসি ক্রেতাদের অনেক পছন্দের একটি চ্যাসিস। আপনাদের যদি ভাল লেগে থাকে তাহলে পড়ে আসতে পারেন কম্পিউটার কেসিং বায়িং গাইড ২০১৮