কখনো কি শুনেছেন চামচ ধরা নিয়ে কোনো ভিডিও গেমের বিরুদ্ধে মামলা করতে?
কখনো কি শুনেছেন নিজে একটানা দীর্ঘ সময় ভিডিও গেম খেলে চাকরি হারিয়ে আবার নিজেই গেমের কোম্পানির বিরুদ্ধে মামলা করতে?
কখনো কি শুনেছেন কোনো গেমিং কোম্পানিকে পুরো একটি গেম Genre কে কপিরাইট করার চেষ্টা করতে?
যদি না শুনে থাকেন তাহলে আজকের পোষ্টটি আপনারই জন্য!

দুটি বা ততোধিক পক্ষের মধ্যে কোনো কিছু নিয়ে ঝামেলা বাঁধলে সেটা নিষ্পত্তি করার শেষ আশ্রয় হলো আইন। আমাদের দেশে সবকিছুর উপর মামলা করা হলেও ভিডিও গেমের উপর কিন্তু এদেশে মামলা করা হয় না। কিন্তু বিশ্বের অনান্য দেশে কিন্তু ভিডিও গেমের উপরেও মামলা হয়ে থাকে। কিন্তু অনেক সময় কোনো সঠিক কারণ ছাড়াই মামলাগুলো করা হয়ে থাকে যা শেষে গিয়ে একটি হাস্যকর মামলায় পরিণত হয়। আজকে আমি আপনাদের জন্য নিয়ে এলাম এমনই ১০টি হাস্যকর ভিডিও গেমের উপর করা মামলার ঘটনা নিয়ে! আশা করবো আজকের পোষ্টটি আপনাদের ভালো লাগবে।

Romantics বনাম Activision

৭০ দশকের রক ব্যান্ড Romantics। ভিডিও গেম নির্মাতা প্রতিষ্ঠান Activision তাদের “Guitar Hero Encore: Rocks the 80s” ভিডিও গেমে ব্যান্ডটির “What I like About You” গানটি কভার করে। উল্লেখ্য যে এক্টিভিশন ব্যান্ডটির পারমিশন নিয়েই ভিডিও গেমটিতে এই গানটি ব্যবহার করেছিলো। কিন্তু মজার ব্যাপার হলো পরবর্তীতে ব্যান্ডটি Activiton এর বিরুদ্ধে মামলা করে দেয়, আর মামলার অভিযোগ ছিলো যে “ভিডিও গেমের কভারকৃত গানটি তাদের আসল গানের সাথে হুবহু মিলে যায় এবং এটা একটি বিভ্রান্তির সৃষ্টি করবে!”। ভিডিও গেমে ব্যবহারের জন্য আপনি আপনার গানকে ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছেন আবার সেটার জন্যেই গেম কোম্পানির বিরুদ্ধে মামলা ঢুকেছেন! ব্যাপারটি পুরোই হাস্যকর! Detroit এর একজন বিচারক এই মামলার নথিপত্র একবার পড়েই মামলাটি বরখাস্ত করে দেন।

জনৈক রাশিয়ান গেমার বনাম Bethesda

ড্রাগস, এলকোহল, স্মোকিং সহ ইত্যাদি “নেশা” জাতীয় দ্রব্যের জন্য মানুষের জীবন নস্ট হয়ে গিয়েছে এমন অনেকগুলো কাহিনীই আমাদের জানা রয়েছে। আবার ভিডিও গেমসের প্রতি অতি মাত্রায় আগ্রহ বা নেশার কারণেও অনেকেরই জীবন ধ্বংস হয়েছে সেটাও আমরা জানি। কিন্তু ভিডিও গেমসের প্রতি নেশা থাকায় খোদ ভিডিও গেম কোম্পানির উপর মামলা চুকে দেওয়া ঘটনা কি আগে শুনেছেন? জ্বি হ্যাঁ! ঠিক এমন কাজটিই ২০১৫ সালে একজন রাশিয়ান গেমার গেম নির্মাতা প্রতিষ্ঠান Bethesda এর বিরুদ্ধে করেছিলেন। কোম্পানির Fallout 4 গেমটির উপর জনৈক রাশিয়ান গেমার এতটাই আসক্ত হয়ে পড়েন যে টানা ৩ সপ্তাহ একনাগারে গেমটি খেলতে থাকেন, এবং ফলাফল স্বরূপ তিনি চাকরি হারান, তার স্ত্রী তাকে ছেড়ে চলে যায়, তিনি সামাজিক কার্যক্রম থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েন এবং ভিডিও গেমে আসক্ত থাকায় ঠিকমত খাবার না খাওয়ায় তিনি শারিরিক ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েন!

এখানে মজার বিষয় হলো এই আসক্তির সম্পূর্ণ দোষ তার নিজের হওয়া স্বত্তেও তিনি Fallout 4 গেমটির নির্মাতা প্রতিষ্ঠান Bethesda এর বিরুদ্ধে “Emotional Distress” কারণ দেখিয়ে একটি মামলা করেন এবং জরিমানা হিসেবে ৭০০০ মার্কিন ডলার চান। পরবর্তীতে এই মামলাটি গোপনে নিষ্পত্তি করা হয়েছে নাকি মামলাটি তুলে নেওয়া হয়েছে এ ব্যাপারে কিছু জানা যায়নি।

No Doubt বনাম Activision

এক্টিভিশনের বিরুদ্ধে করা আরেকটি হাস্যকর মামলা হচ্ছে এটি। কোম্পানির Band Hero গেমটিতে আমেরিকান রক ব্যান্ড “No Doubt” এর সদস্যদেরকে গেমের ক্যারেক্টার হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছিলো। কিন্তু ব্যান্ডটি যখন দেখলো যে গেমটিতে ব্যান্ড মেম্বারগুলো তাদের নিজেদের ব্যান্ডের গান ছাড়াও অনান্য গান গাইছে তখনই কোম্পানির বিরুদ্ধে মামলা করে দেয়! মামলাটি হাস্যকর হয়েছে এ কারণে যে ব্যান্ডটি Activision এর সাথে “digital contract act’’ চুক্তিটি ভালো করে না পড়েই মামলাটি করে দেয়। সেখানে স্পষ্ট বলা ছিলো যে গেমটির Avatar গুলোকে গেমটির ফ্যাশনের সাথে যেকোনো গানের সাথে ম্যাচ করা হবে। মামলাটি আদালতে নিষ্পত্তি সবার মাত্র এক সপ্তাহ আগেই এক্টিভিশন এবং ব্যান্ড মেম্বারদের সাথে একটি ইন্টারনাল বৈঠকে দুটি পক্ষই একটি সমঝোতায় আসেন এবং মামলাটি তুলে নেওয়া হয়। সমঝোতাটি হলো No Doubt ব্যান্ডটি Band Hero গেমটির লাভাংশ থেকে একটি % পাবেন!

Universal Studios বনাম Nintendo

১৯৮২ সালে নিনটেডু যখন তাদের Donkey Kong গেমটি মুক্তি দেয়; তখন মুক্তির পর কোনো রিঅ্যাকশন না দিলেও গেমটি যখন ধীরে ধীরে জনপ্রিয়তা লাভ করতে থাকে তখন হঠাৎ করেই হলিউডের মুভি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান Universal Studios দাবী করে যে গেমটির বড়সড় মাপের Ape টি নাকি তাদের King Kong মুভির Ape এর অনুকরণে বানানো হয়েছে এবং তারা তখনকার সময়ের ছোট জাপানি কোম্পানি Nintendo এর কাছে দাবী করে যে গেমটি তুলে নিতে কিংবা তাদের কাছ থেকে লাইসেন্স কিনে নিতে।  কিন্তু নিনটেনডু তাদের এই দাবী মেনে নেয়নি এবং ফলাফল স্বরূপ কোম্পানি দুটি আদালতে মিমাংসা করতে বসে যায়! ইউনিভার্সালের এই হাস্যকর দাবীটি বিশ্বব্যাপী নিন্দিত হয়েছিলো  এবং আদালতেও মামলাটির বিজয়ী হয় nintendo । কারণ কিং কং বা বড় সাইজের Ape টি একটি পাবলিক ফিগার এবং এর উপর খোদ Universal স্টুডিওর নিজেরই কোনো কপিরাইট লাইসেন্স নেই।  আর একই সাথে Nintendo কে তার কোম্পানির ভাবমূর্তিক্ষুণ করার জন্য Universal এর বিরুদ্ধে মানহানি মামলা করার পারমিশনও আদালত কোম্পানিকে দিয়ে দেয়। পরবর্তীতে Donkey Kong গেমটিকে King Kong ছায়াছাবির অফিসিয়াল প্যারোডি গেম হিসেবেই আখ্যায়িত করা হয়ে থাকে।

Jack Thompson!

আমেরিকার ফ্লোরিডার একজন এট্যার্নি ছিলেন Jack Thompson । তিনি সবসময়ই মুখিয়ে থাকতেন ভিডিও গেমের উপর এলোপাথারি ভাবে মামলা করার জন্য। বিশেষ করে যখনই কোনো ভায়োলেন্স জাতীয় ভিডিও গেম রিলিজ হতো ঠিক তার পরপরেই তিনি গেমটির ভায়োলেন্স গেমপ্লের উপর হাস্যকর কারণ দেখিয়ে মামলা করা শুরু করে দিতেন। বিশেষ করে GTA সিরিজের গেমসগুলোর উপর তার বিশেষ নজর (!) ছিলো! জিটিএ সিরিজের গেমস থেকে শুরু করে Bully, Manhunt এবং Mortal Kombat মানে ভায়োলেন্স গেমপ্লে যেসকল গেমে ছিলো সবগুলো গেমের বিরুদ্ধেই তিনি মামলা করে রাখতেন। তবে তার করা এই মামলাগুলো অল্প কিছুদিনের মধ্যেই নিষ্পত্তি হয়ে যেত কারণ এগুলোর বিরুদ্ধে “আসল” কোনো কারণ আদালত খুঁজে পেতেন না। পরবর্তীতে ২০০৮ সালে জিটিএ ৪ গেমটির বিরুদ্ধে আমেরিকার ভায়োলেন্স বৃদ্ধির কারণ দেখিয়ে একটি মামলা করেন তিনি এবং মামলায় রকস্টার গেমস কোম্পানি জিতে যায় এবং একই সাথে এট্যার্নি Jack Thompson তার পেশা থেকে বহিস্কৃত হয়ে যান! RIP!

Lindsay Lohan বনাম Rockstar

রকস্টার কোম্পানিটি তাদের ইতিহাসে সবথেকে ব্যবস্যাসফল ভিডিও গেম জিটিএ ৫ বাজারে ছাড়ে ২০১৩ সালে। গেমটি ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করে। এতটাই জনপ্রিয়তা লাভ করে যে গেমটির একটি আর্টওয়ার্ক হলিউড অভিনেত্রী Linday Lohan এর চোখে পড়ে যায় এবং তিনি মনে করেন এই আর্টওর্য়াকটি তার উপর ভিক্তি করে তৈরি করা হয়েছে এবং আপনারা যা ভাবছেন সেটাই হয়েছে! তিনি রকস্টার কোম্পানির বিরুদ্ধে মামলা করে বসেন! তার অভিযোগ ছিলো গেমটিতে তার সিগন্যাচার “peace sign” এবং অনান্য “ট্রেডমার্ক” জিনিস ব্যবহার করা হয়েছে। মামলাটি তখনই হাস্যকর মামলায় পরিণত হয় যখন তিনি দাবি করেন হাতের দুটি আঙ্গুলের Peace Sign টি তার নিজের সিগন্যাচার মুভ! আর তাই ২য় বার না ভেবে New Yourk শহরের সুপ্রিম কোর্ট মামলাটি খারিজ করে দেন। এছাড়াও জিটিএ ৫ গেমটির সকল চরিত্রকে কাল্পনিকভাবে বানানো হয়েছে এই মর্মে রকস্টারের কাছে বৈধ লাইসেন্স ছিলো বিধায় মামলাটি বেশিদূর গড়ায়নি।

জনৈক ট্যাটু নির্মাতা বনাম THQ

কখনো কি শুনেছেন একটি গেমে বাস্তব সম্মত ডিটেইলস এর জন্য মামলা খেতে হয়? হ্যাঁ THQ এর সাথে সেটাই হয়েছে! এবং এটা হাস্যকরও বটে। THQ কোম্পানির UFC Undisputed 2010 ভিডিও গেমটিতে প্রতিটি ক্যারেক্টারের ডিজাইনকে বেশ বাস্তবসম্মত ভাবে করা হয়েছিলো। গেমটিতে UFC ফাইটার Carlos Condit এর চরিত্রে তার পেটের ডান দিকে একটি ট্যাটুকে নিয়ে আসা হয় এবং সেই ট্যাটুটি Carlos Condit এর গাঁয়ে যে জনৈক ট্যাটু নিমার্তা বসিয়েছিলে তিনিই THQ এর বিরুদ্ধে মামলা করে বসেন! জৈনক ট্যাটু নির্মাতা THQ এর বিরুদ্ধে তার আঁকা ট্যাটুটি বিনা অনুমতিতে গেমটিতে ব্যবহার করার জন্য মামলা করেন এবং জরিমানা হিসেবে ৪.১৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলার দাবি করে বসেন!

জনৈক মাফিয়ার মেয়ে বনাম Rockstar

জিটিএ ৫ য়ে একটি সাইড মিশন রয়েছে যেখানে প্লেয়ারকে একজন Mob এর মেয়ে “Antionia Bottino” কে বাঁচাতে হয়।  আর ওদিকে বাস্তব জীবনে আমেরিকার একজন মাফিয়ার মেয়ে রকস্টার কোম্পানির বিরুদ্ধে প্রায় ৪০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের একটি মামলা করে বসেন এই অভিযোগে যে ক্যারেক্টারটি তার উপর ভিক্তি করে তৈরি করা হয়েছে। এমনকি তিনি এটিও দাবী করেন যে মিশনটি কাহিনীও তার জীবন থেকে নেওয়া হয়েছে! পরবর্তীতে আদালতে বলা হয় যে কারো জীবন কাহিনী কপিরাইট ভাবে প্রটেক্ট থাকে না এবং রকস্টার অন্যদিকে ক্যারেক্টারটি তার উপরে ভিক্তি করে তৈরি করেনি প্রমাণ করতে পারায় মামলাটি বরখাস্ত হয়ে যায়।

Uri Geller বনাম Pokemon

চলে এলাম আমাদের আজকের টপ ১০ হাস্যকর গেমিং মামলার ২য় স্থানে। আর এখানে রয়েছেন Uri Geller নামের একজন ম্যাজিশিয়ান। তিনি একটি পকিমন গেমের বিরুদ্ধে মামলা করে বসেন। কারণটা কি জানেন? কারণ হচ্ছে গেমটির Kadabra চরিত্রটি ম্যাজিশিয়ানের মতোই চামচ ধরে রেখেছে! এর থেকে হাস্যকর আর কি হতে পারে??!!

PUBG বনাম Fortnite

হাহাহাহাহা! কোরিয়ান গেম নির্মাতা প্রতিষ্ঠান Epic Games এর বিরুদ্ধে ২০১৮ সালের শুরুর দিকে PUGB Corporation একটি কপিরাইট মামলা করে যা পরবর্তীতে সম্পূর্ণ ভোকাস এবং হাস্যকর মামলায় পরিণত হয়েছে। কারণ মামলায় বলা হয়েছে ব্যাটল র‌য়্যাল ধাঁচের গেমপ্লে কোম্পানির PlayerUnknown’s Battlegrounds গেমটির একটি “কপিরাইট”কৃত উপাদান এবং এটা Fortnite গেমে ব্যবহার করা হয়েছে। মানে কি আর বলবো! আপনি একটি কোম্পানিকে আপনার কোম্পানির ভিডিও গেমের সাদৃশ্য থাকার কারণে মামলা করতে পারেন কিন্তু আপনি পুরো একটি গেম প্লে মোড কিংবা একটি পুরো Genre এর উপর কোনো কপিরাইট আইন দেখাতে পারেন না! এমনটি যদি হতো তাহলে ১৯৯৩ সালে মুক্তি পাওয়া DOOM গেমটির নির্মাতা প্রতিষ্ঠান Id Software পরবর্তীতে রিলিজ হওয়া সকল প্রকার ফার্স্ট পারসন শুটার গেমসগুলোর বিরুদ্ধে মামলা করে বসতো! বুঝেছেন কাহিনীটা!