ডার্ক মোড! টিপিক্যাল সাদা থিমের তুলনায় কালো রংয়ের থিম বা Dark Mode কে অনেকেই পছন্দ করেন রাতের বেলায় ভালো দেখার জন্য। এছাড়াও ব্যক্তিগত পছন্দ তো রয়েছেই। কিন্তু অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম অফিসিয়াল ভাবে এই ডার্ক থিম ছিলো না, আমাদেরকে প্রতিটি অ্যাপের জন্য আলাদা করে থার্ড পার্টির ডার্ক থিম ব্যবহার করতে হতো। তবে কিছুদিন আগে গুগল নিজেই তার সকল অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপসের জন্য (গুগল অ্যান্ড্রয়েড অফিসিয়াল অ্যাপস) ডার্ক মোডটি নিয়ে এসেছে। আর একই সাথে গুগল স্বীকার করেছে যে সকল স্মার্টফোনে OLED ডিসপ্লে নেই সেসকল ডিভাইসের ব্যাটারি লাইফ সেভ করতে ডার্ক মোড সাহায্য করবে। অর্থ্যাৎ ডার্ক মোডটি ব্যবহার করে আপনি ব্যাটারি বাঁচাতে পারবেন। আজকের পোষ্টে যে সকল গুগল অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপে ডার্ক মোড এসেছে সেগুলোতে আপনি কিভাবে ডার্ক মোড একটিভ করবেন সেটা নিয়ে আলোচনা করবো। তবে উল্লেখ্য যে ব্যাটারি সেভের ব্যাপারটি লেটেস্ট অ্যান্ড্রয়েড সংষ্করণ ৮ এবং এর পরের সংষ্করণের জন্য প্রযোজ্য হবে।

ইউটিউব ডার্ক মোড

গুগলের সব থেকে বেশি ব্যবহৃত অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ হচ্ছে ইউটিউব। বিশ্বের সবথেকে বড় ভিডিও সার্ভিস ইউটিউব তাদের ওয়েব এবং আইওএস সংস্করণে ডার্ক মোড কয়েক মাস আগেই নিয়ে এসেছে। তবে কিছুদিন আগে ইউটিউব অ্যান্ড্রয়েড সংস্করণেও চলে এসেছে ডার্ক মোড বা ডার্ক থিম। তবে মনে রাখতে হবে যে দিনের বেলায় বাইরে সূর্যের আলোর নিচেই এই ডার্ক মোডটি দিয়ে পরিস্কার নাও দেখতে পারেন আপনি। ইউটিউবের ওয়েব সংষ্করণে ডার্ক মোডটি চালু করতে চাইলে আপনার প্রোফাইল আইকনে ক্লিক করুন, ড্রপ ডাউন মেন্যু থেকে Dark Theme অপশনটি Toggle করে দিন। অ্যান্ড্রয়েডে ডার্ক মোডটি একটিভ করতে চাইলে চলে যান ইউটিউব অ্যাপের সেটিংয়ে, সেখান থেকে জেনারেল ট্যাবে গিয়ে Dark Theme অপশনটি চালু করে নিন। তবে মনে রাখতে হবে যে ডার্ক মোডের জন্য অ্যান্ড্রয়েড ইউটিউবের V13.35 বা এর থেকে উন্নত সংষ্করণে আপনার থাকতে হবে।

মেসেজ ডার্ক মোড

এটা কিন্তু ফেসবুকের মেসেঞ্জার নয়। আপনার অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসের ডিফল্ট মেসেজ বা খুদে বার্তাগুলো যে ডিফল্ট গুগল অ্যাপের মাধ্যমে আপনি একসেস করেন সেই Messages অ্যাপেও চলে এসেছে ডার্ক মোড। গুগলের অফলাইন অ্যাপের মধ্যে এই Messages অ্যাপেই সর্বপ্রথম ডার্ক মোড ফিচারটি চলে এসেছে। Messages এর ডার্ক মোডটি অ্যাপটির অধিকাংশ সেক্টরেই আপনাকে ডার্ক থিমটি উপহার দিতে পারবে; এদের মধ্যে রয়েছে প্রাইমারি ইন্টারফেস, individual মেসেজ এবং সকল মেন্যু। তবে পুরোপুরি ডার্ক থিম আপনি পাবেন না কারণ অ্যাপটি অনেক Accent Colors গুলো ডার্ক মোডে পরিবর্তিত হবে না। Messages অ্যাপে ডার্ক থিম একটিভ করতে চাইলে মূল ইন্টারফেস থেকে Three-dot মেন্যুতে ট্যাপ করতে হবে এবং সেখান থেকে Enable Dark Mode অপশনটি চালু করে নিতে হবে।

Gboard ডার্ক মোড

গুগলের Gboard অ্যান্ড্রয়েডের জন্য অন্যতম সেরা কিবোর্ড, যা অনেক অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসে বাই ডিফল্ট কিবোর্ড হিসেবে সেট করা থাকে। আর এই জিবোর্ড অ্যাপেও আপনি এখন ডার্ক মোড অপশনটি উপভোগ করতে পারবেন। তবে মনে রাখতে হবে যে এই অ্যাপে গুগল এখনো অফিসিয়াল ভাবে ডার্ক মোড আনেনি। আপনি ডার্ক থিম ইউজ করতে পারবেন যেটা দিয়ে ডার্ক মোডের ৯০%ই রয়েছে। Gboard অ্যাপে ডার্ক থিম আনার জন্য Gboard এর সেটিংসয়ে চলে যান, সেখান থেকে Theme অপশনে ক্লিক করুন, থিম থেকে আপনার পছন্দমতো ডার্ক থিমটি আপনি সিলেক্ট করে নিতে পারেন।

পিক্সেল লাঞ্চার ডার্ক মোড

পুরো অ্যান্ড্রয়েড সিস্টেমকে ডার্ক মোড আনার জন্য কাজ করছে গুগল। তবে আপনি চাইলে পিক্সেল লঞ্চার ব্যবহার করে আপনার সম্পূর্ণ অ্যান্ড্রয়েড সিস্টেমের অধিকাংশ অংশে ডার্ক মোডটি আনতে পারবেন ডার্ক থিম ব্যবহার করে। এই ফিচারটি সর্বপ্রথম গুগলের পিক্সেল ২ ডিভাইস ফ্যামিলির জন্য exclusive ফিচার ছিলো। পরবর্তীতে পিক্সেল লাঞ্চারে এই ফিচারটি আনার মাধ্যমে যেকোনো অ্যান্ড্রয়েডে এই ফিচারটি উপভোগ করা যাবে। পিক্সেল লাঞ্চার ব্যবহার করে আপনি যদি কালো ধাঁচের কোনো ওয়ালপেপার সেট করেন তাহলে আপনার ওয়ালপেপার অনুযায়ী পিক্সেল লাঞ্চারটি নিজে নিজেই থিম কাস্টমাইজ করে নিবে। পিক্সেল লাঞ্চার ইন্সটল করে আপনার হোম স্ক্রিণে একটি কালো বা ডার্ক রংয়ের ওয়ালপেপার সেট করলে দেখবেন যে অটোমেটিক্যালি পিক্সেল লাঞ্চারের অধিকাংশ সেটিংস ডার্ক থিমের আন্ডারে চলে গিয়েছে। যারা যারা Android Pie ব্যবহার করেন তারা নিজেরাই ম্যানুয়ালী পিক্সেল লাঞ্চারে ডার্ক থিমটি চালু করতে পারবেন।

গুগল নিউজ ডার্ক মোড

যারা যারা গুগল নিউজে বিশ্বের সংবাদ পড়ে থাকেন তাদের জন্য রয়েছে সুখবর। এখন গুগল নিউজেও চলে এসেছে ডার্ক মোড বা ডার্ক থিম। এর মাধ্যমে রাত্রের আঁধারে গুগল নিউজ ভিজিট করতে আপনার চোখের বেশি সমস্যা হবে না। গুগল নিউজ অ্যাপের সাম্প্রতিক আপডেটের মাধ্যমে গুগল এই ডার্ক মোডটি নিয়ে এসেছে। এটা একটিভ করলে পুরো গুগল নিউজ ইন্টারফেস এবং সেটিং ও মেন্যু-সাবমেন্যু সবকিছুই কালো রংয়ের থিমের আন্ডারে চলে যাবে, এছাড়াও এর উপর আপনি কিছু কাস্টমাইজেশন করতে পারবেন। গুগল নিউজ অ্যাপে ডার্ক মোড ব্যবহার করতে চাইলে গুগল নিউজ এর সেটিংয়ে চলে যান তারপর সেখান থেকে Dark Theme অপশনে গিয়ে এটা চালু করে দিন।

গুগল ম্যাপস ডার্ক মোড

গুগলের আরেকটি সার্ভিসে আপনি ডার্ক মোড পাচ্ছেন সেটা হলো গুগল ম্যাপে। তবে এটায় পুরো অ্যাপে ডার্ক মোড পাবেন না শুধুমাত্র ম্যাপের navigation সেক্টরে আপনি ডার্ক মোডটি পাবেন। গুগল ম্যাপে সরাসরি Dark Mode বা Dark Theme নামে এই সেটিংসকে আপনি পাবেন না বরং white theme এর আন্ডারে “night mode” নামে এই ফিচারটি আপনি পেয়ে যাবেন। এটা অন করলে গুগল ম্যাপের navigation অংশটি ডার্ক থিমের আন্ডারে চলে আসবে।

গুগল অথেনটিকেটর ডার্ক মোড

আপনি যদি 2 step অথেনটিকেটর সিস্টেম টি ব্যবহার করে থাকেন তাহলে গুগলের নিজস্ব অথেনটিকেটর এর ব্যাপারে নিশ্চয় জেনে থাকবেন। আর Google Authenticator অ্যাপেও চলে এসেছে ডার্ক মোড। অ্যাপটি লেটেস্ট সংস্করণে আপগ্রেড করলেই আপনি পেয়ে যাবেন এই ফিচারটি। ডার্ক মোডটি চালু থাকা অবস্থা কিছু মেন্যু ছাড়া অ্যাপের বাকি সকল ইন্টারফেসেই কালো রংয়ের থিমের ডিজাইনের আন্ডারে চলে যাবে।

স্ন্যাপসিড ডার্ক মোড

যারা গুগলের নিজস্ব ফটো এডিটিং অ্যাপ Snapseed ব্যবহার করেন তারাও এখন এই অ্যাপে অফিসিয়ালভাবে ডার্ক মোড ফিচারটি উপভোগ করতে পারবেন। বিশেষ করে যারা রাত্রের বেলায় অ্যাপটির মাধ্যমে ফটো এডিটিং করে থাকেন তাদের জন্য এই ফিচারটি বেশ কাজে আসবে। ডার্ক থিমটি অ্যাপটিকে এডোব ফটোশপের মতো লুক দিবে। স্ন্যাপসিডে ডার্ক থিমটি একটিভ করার জন্য অ্যাপটির সেটিংসয়ে চলে যান আর সেখানের প্রথম অপশনেই আপনি পেয়ে যাবেন ডার্ক থিমের toggle অপশন।

এই ছিলো গুগলের যে সকল অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপে এখন ডার্ক মোডটি চলে এসেছে তার লিস্ট। এদের মধ্যে অনেকগুলোই আপনাদের কাজে লাগতে পারে আবার অনেকগুলোই কাজে নাও আসতে পারে। যেমন গুগল ম্যাপের ডার্ক মোডটি দিনের বেলা সেট করলে দেখা যাবে যে রাস্তার নেভিগেশন দেখতে আপনার সমস্যা হতে পারে। কিন্তু অন্য দিকে ইউটিউব ডার্ক মোড কম বেশি সবারই কাজে দিবে বিশেষ করে যারা স্মার্টফোনে রাতের বেলায় ইউটিউব দেখেন।

Avatar
Fahad is a freelance writer and editor with nearly 10 years' experience in Bangla Technology Blogging who, while not spending every waking minute selling himself to websites around the world, spends his free time writing. Most of it makes no sense, but when it does, he treats each article as if it were his Magnum Opus - with varying results.