31 C
Dhaka
Saturday, June 15, 2024

Deepcool CH370 Review

- Advertisement -

কম্পিউটার কেস মার্কেট টা বাংলাদেশে দিন দিন বেশ ইন্টারেস্টিং হয়ে যাচ্ছে। কালের বিবর্তন এ হারিয়ে যাওয়া সব নামি দামি “পশ” ব্র্যান্ড গুলো কে শুধু কোয়ালিটি এর নাম দিয়ে সার্ভাইভ করতে হচ্ছে, কোন নতুনত্ব,ইনভেশন, ডিজাইন দিয়ে মার্কেট ক্যাপচার করতে পারছে না। যেখানে মাঝারি সাইজের ব্র্যান্ড গুলো পাল্লা দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে তাদের চেয়ে। ২/৩ বছর আগেও আমরা যেসব ব্র্যান্ড কে চিনতাম না, অমন নামে যে মার্কেট এ কেও এক্সিস্ট করে সেটাও যানতাম না, তারাই এখন মার্কেট লিড করছে।
Deepcool বর্তমানে সবার কাছেই একটি পরিচিত নাম, ফ্যান, কুলার,কেস নিয়ে মার্কেট এ বেশ ভাল একটা পজিশন এ আছে বলা যায়। টুকটাক কম্পিউটার কেস নিয়ে আমাদের একটু নাড়া চাড়া করার পর একটু বিরতি দিয়ে আজ আমরা রিভিউ করছি Deepcool এর CH370।
কেস গুলো আমরা সংগ্রহ করেছি Computer Solution Inc থেকে, যারা বাংলাদেশ এ Deepcool এর অন্যতম Authorized Distributor. CSI যদিও নিজেরা ডিরেক্টলি সেল করে না, সেল করে রিটেইলার দের কাছে (যেমন Startech, Techland, Ryans etc)

Deepcool CH370

- Advertisement -

Competitor Analysis

প্রি ইন্সটলড ১টি নন RGB ফ্যান সহ কেস টি ২টি কালার ভেরিয়েন্ট এ পাওয়া যাচ্ছে কেস টি; সাদা এবং কালো। Techland এর ওয়েবসাইট এ CH370 ব্ল্যাক টির দাম ৪৯০০ টাকা, সাদা টি ৫১০০ টাকা
StarTech er ওয়েবসাইট এ যদিও স্টক আউট তবে কালো টির দাম ৪৮০০ টাকা। Ryans এর ওয়েবসাইট এ কালো টির দাম ৫১০০ ও সাদা টি ৫২০০। ইন পার্সন পারচেজ এ অবশ্য কিছু কমে পাওয়ার কথা,তবে আমাদের দেশে নতুন পুরাতন শিপমেন্ট ও স্টক এর সমস্যা নতুন কিছু নয় দেখেই থাকি।
এছাড়াও সিমিলার বাজেটে বাজারে CoolerMaster MB511, Antec DP501, MSI MAG FORGE 111R, Montech X3 MESH সহ আরো বেশ কিছু কেস এভেইলেবল রয়েছে, যদিও স্টক এবং নতুন পুরাতন শিপমেন্ট এর বিভ্রান্তি থাকবেই যেটা বলছিলাম।

Unboxing & Accessories

কেস এর আনবক্সিং নিয়ে আসলে কিছু বলার নেই, স্ত্রেইট ফরওয়ার্ড খুব। ১১ টা কেবল টাই, প্রয়োজনীয় বেশ কিছু স্ক্রু, আর একটা বিশাল লম্বা ইউজার ম্যানুয়াল একটা জিপ লক ব্যাগ এ ছিল PSU কাট আউট এর ভেতর।

- Advertisement -

Outlook Inspection

এই যুগে এসে কেও Waffle চেনে না এমন কাওকে পাওয়া যাবে না, না চিনলে এই কেস টার ফ্রন্ট প্যানেল দেখলেই চিনে যাবেন। হয়তো ভোজনরশিক বা ফুড ভ্লগার দের কথা ভেবে এই ডিজাইন ইমপ্লিমেন্ট করা। যা বলছিলাম, কেস এর ফ্রন্ট এয়ার ইনটেক ডিজাইন টা পুরোপুরি একটা Waffle ভাইব দেয়। সাইডের টেম্পারড গ্লাস প্যানেল টা ম্যাগনেটিক। সাইজে ছোট খাটো হওয়ায় সহজে বহন করা যাবে। স্লিক প্লাস সিমপল ডাইনামিক ডিজাইন এর একটা ভাল কম্বিনেশন রয়েছে এতে। অনেকেই আছে যারা স্লিপার পিসি+মিনিমালিস্টিক সেটআপ চান তারা এটা বিবেচনায় রাখতে পারেন।

Deepcool CH370

 

- Advertisement -

Specification

এখানেই এসে Deepcool বেশ স্ট্রং একটা পুশ দিয়েছে, ফিচার প্যাকড একটা কেসিং। 

কেস টা মেটাল বিল্ড এর, যদিও মেটাল এর থিকনেস নিয়ে কোন তথ্য পাওয়া যায় নাই। তবে ইনিশিয়ালি হ্যান্ড ফিল মোটামোটি ভালই, ৫ হাজার টাকার আসেপাশে যেসব কেস বাজারে পাওয়া যায় সেগুলোর মতই এর কোয়ালিটি।

কেস টির বিল্ড কোয়ালিটি বেশ শক্ত পক্ত। তেমন কোন ফ্লেক্স নেই ।

কেস টির উচ্চতা ১৬.২৫ ইঞ্চি, প্রস্থ ১৫.৭৫ ইঞ্চি এবং সাইডে ৮.৫ ইঞ্চি। বেশ কম্প্যাক্ট সাইজের একটি কেস।কেস টির সাথে ১টি ১২০mm নন আরজিবি এক্সহাউস্ট ফ্যান আসে। 

কেস টির সামনে Waffle মেশ এবং সাইডে গ্লাস প্যানেল রয়েছে। ওয়াফল মেশ টির নিচে একটা সুইচ রয়েছে যেটি তে পুশ করে ২টা ডিফারেন্ট প্যাটার্ন পাওয়া যাবে। সাইড প্যানেল টি টেম্পার্ড গ্লাস এর এবং এটি ম্যাগ্নেটিক। উপরে দুইটা ম্যাগ্নেট এর সাহায্যে গ্লাস টা লেগে থাকে। গ্লাস টির পেছনে পুল করার জন্য একটা এক্সট্রা হোল্ডিং গ্রিপ দেয়া আছে যাতে আবার পুলিং ডিরেকশন এম্বস করা আছে।

Deepcool CH370

নিচের বেসমেন্ট সেকশনটি পুরোটাই সীলড। ৪টা এক্সপেনশন স্লট রয়েছে।

পাওয়ার সাপ্লাই কাটআউটের ঠিক পেছনেই হার্ড ড্রাইভ কেজটি রয়েছে যাতে দুইটা হার্ড ড্রাইভ অথবা একটা হার্ড ড্রাইভ এবং একটি এস এস ডি ইন্সটল করা যাবে। হার্ড ড্রাইভ কেজ টা স্লাইডিং হলেও টুল লেস না। এছাড়াও পেছনে আরো দুইটি এসএসডি ইনস্টল করা যাবে।  পি এস ইউ এর ক্লিয়ারেন্স এর জন্য হার্ড ড্রাইভ কেজ টি অলমোস্ট হাফ ইঞ্চি পেছনে নেওয়া যাবে। পি এস ইউ এর এয়ার ইনটেক এর জন্য নিচে একটি ডাস্ট ফিল্টার রয়েছে,তবে সচরাচর কেস গুলোতে স্লাইডিং ডাস্ট ফিল্টার থাকলেও এটি সম্পূর্ণ ম্যানুয়াল। কেসটির রিয়ার সাইড প্যানেলের থামব স্ক্রু গুলো পুরোপুরি খোলা ছাড়াই এক্সেস করা যাবে,এতে করে থাম স্ক্রু হারিয়ে যাওয়ার ভয় থাকবে না। 

তবে এই কেসে সবচেয়ে ক্রিয়েটিভ জিনিস যদি কিছু একটা বলতে হয়, সেটি হবে এর হেডফোন স্ট্যান্ড টি। ফ্রন্ট প্যানেলের ভিতরে একটি ছোট জায়গায় একটা সিম্পল স্প্রিং মেকানিজম দিয়ে একটা হেডফোন স্ট্যান্ড দেওয়া রয়েছে। এমনটা নয় যে সেখানে শুধু হেডফোন রাখা যাবে,চাইলে ইয়ারফোন ও রাখা যাবে। অনেকে আছেন যারা একটা হেডফোন স্ট্যান্ড এর জন্য বাড়তি বেশ কিছু টাকা খরচ করে থাকেন, এই কেস কিনে নিলে বলা যায় হেডফোন স্ট্যান্ড সাথে ফ্রি পাচ্ছেন।

 

Motherboard Support

কেস টির মার্কেটিং করাই হচ্ছে M-ATX কেস বলে। অর্থাৎ এই কেসটিতে M-ATX থেকে শুরু করে এর নিচের সাইজের সব মাদারবোর্ড ইউজ করা যাবে। 

GPU Clearance

কেসটিতে মোটামুটি ৩২০ মিমি লেন্থের গ্রাফিক্স কার্ড ইনস্টল করা যাবে। আর বর্তমান সময়ে গ্রাফিক্স কার্ড গুলোর থিকনেস এতই বড় একটা সমস্যা যে সময়ের সাথে সাথে এগুলোতে একটা সেগিনেস চলে আসে। সেই সাপোর্ট হিসেবে একটা এডজাস্টেবল GPU হোল্ডার দেওয়া রয়েছে। তবে যেহেতু চারটা এক্সপেন্সন স্লট রয়েছে সে হিসেবে খুব একটা হাই এন্ড GPU ইউজ করলে একটু সাফোকেশন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। হয়তো ম্যাক্স RTX30 সিরিজ পর্যন্ত কন্সিডার করতে পারেন। 

Cooler Clearance

সিপিইউ কুলিং এর জন্য এতে সর্বোচ্চ ১৬৮ মিমি এর টাওয়ার কুলার ব্যবহার করা যাবে। বাজারে জনপ্রিয় মোটামুটি সব টাওয়ার কুলার অনায়াসে এতে ইনস্টল করা সম্ভব । এছাড়াও টপে 120,140,240,280mm পর্যন্ত AIO ইনস্টল করা যাবে এবং ফ্রন্ট এ 360mm পর্যন্ত AIO ইন্সটল করা যাবে।

PSU Support

এই কেসটিতে সর্বোচ্চ 160mm এর পাওয়ার সাপ্লাই ব্যবহার করা যাবে। তবে প্রয়োজনে হার্ড ড্রাইভ কেজ টি সরিয়ে অথবা পুরোপুরি খুলে বড় পাওয়ার সাপ্লাই ব্যবহার করা যাবে, এতে একটু বাড়তি কেবল ম্যানেজমেন্ট ক্লিয়ারেন্সও পাওয়া যাবে। 

Airflow

এই কেসের এয়ারফ্লো বেশ ডাইনামিক। কেইসের সামনে একটি ফুল মেষ প্যানেল রয়েছে। সামনে চাইলে একটা দুইটা অথবা তিনটা ফ্যান ইন্সটল করে অথবা রেডিওটার মাউন্ট করে একটা ক্লিয়ার এয়ার ফ্লো পাওয়া সম্ভব। এছাড়াও টপে ২৮০ মিমি পর্যন্ত ফ্যান সাপোর্ট থাকায় উপরেও রেডিয়েটর মাউন্ট করা যাবে ।

পাওয়ার সাপ্লাই শ্রাউড এর প্লেট টি মেষ এবং এখানেও চাইলে ফ্যান ইনস্টল করা যাবে। তবে পাওয়ার সাপ্লাই এর জন্য তেমন একটা এয়ার ইনটেক হওয়ার সুযোগ নেই। 

এছাড়া কেসের দুই পাশেই উপর থেকে নিচ পর্যন্ত দুইটি লম্বা এয়ার ইনটেক ভেন্ট এর মত রয়েছে, তবে সেগুলো ইনিশিয়ালী সিল্ড মনে হয়েছে। আবার রিয়ার প্যানেল এর নিচে একটি ভেনট রয়েছে।

এবং এ সকল ইনটেকের জন্য পেছনের যে ১২০ মিমি এর এক্সজস্ট ফ্যান রয়েছে সেটি দিয়ে একটা পজিটিভ এয়ার প্রেসার থাকবে বলে আশা করা যাচ্ছে যদিও সেটা টেস্টিংয়ে পরীক্ষা করে দেখা হবে।  

টপের এয়ার ফ্লোয়ের জন্য একটি ম্যাগনেটিক ডাস্ট ফিল্টার দেওয়া রয়েছে, তাছাড়া সামনের প্যানেল টি ডাস্ট ফিল্টার এপ্লাইড, অর্থাৎ এটি ক্লিন করতে হলে আপনাকে পুরো ফ্রন্ট প্যানেলটি খুলে নিতে হবে।

Deepcool CH370

Input Output Ports

একটা পাওয়ার বাটন, একটা রিসেট বাটন, একটা কম্বো অডিও জ্যাক ও দুটি USB Gen 3 পোর্টের কম্বিনেশনে একটা সিম্পল মিনিমাল ইনপুট আউটপুট কম্বিনেশন রয়েছে। যদিও একটা Type-C পোর্ট পেলে ভাল হতো। বর্তমান সময়ে ডাটা ট্রান্সফার টাইম খুব ভাইটাল একটা ইস্যু। একটু দেরি হলেই মেজাজ গরম হয়ে যায়। একটা Type-C পোর্ট দিলে হয়তো খুব একটা ক্ষতি হতো না, বরং তাদের সেল বাড়ত। 

Cable Management 

এই কেসে কেবল ম্যানেজমেন্ট এর জন্য রাউটিং পাথ তৈরি করা না থাকলেও কেবল টাই দিয়ে বেশ ভালো কেবল ম্যানেজমেন্ট এর সুযোগ রয়েছে। EPS পাওয়ার, 24 Pin মাদারবোর্ড পাওয়ার, ফ্রন্ট প্যানেল I/O এবং আরো প্রয়োজনীয় কেবল রাউটিং এর জন্য বেশ বড় বড় হোল রয়েছে। ভালো হাতে কেবল ম্যানেজমেন্ট করতে পারলে বেশ ক্লিন স্লিক একটা লুক দেওয়া যাবে।  

Testing and Results

 টেস্টিং সিস্টেম হিসেবে আমরা মাদারবোর্ড ব্যবহার করেছি গিগাবাইট বি ফাইভ ফিফটি DS3H, কিংস্টন এর ৮ জিবি ডিডিআর4 ৩২০০ মেগাহার্জের দুইটা স্টিক, রাইজেন 5 5600X, বুট ড্রাইভ Kingston NV1, গরীবের বন্ধু GPU GT 710, Deepcool এর CF120 Plus ৬টি ARGB fan। এবং পুরো সিস্টেমকে পাওয়ার দিচ্ছে ফার্স্ট প্লেয়ার এর ৫০০ওয়াট এর একটি পি এস ইউ। 

সাইড প্যানেল লাগিয়ে, ১০মিনিট এর Cinebench R23 মালটিকোরে আমরা স্কোর পেয়েছি 10321 , ম্যাক্সিমাম টেম্পারেচার 88.6, এভারেজ 86.9 

সাইড প্যানেল খুলে একই টেস্টে Cinebench R23 মালটিকোরে স্কোর পেয়েছি 10355 , ম্যাক্সিমাম টেম্পারেচার 87.1, এভারেজ 86.2।

আবার সাইড প্যানেল লাগিয়ে সিঙ্গেল কোর এ স্কোর ১৫৩১, ম্যাক্সিমাম টেম্পারেচার 87.1, এভারেজ 73.6।এবং সাইড প্যানেল খুলে সিঙ্গেল কোর এ স্কোর ১৫৩২, ম্যাক্সিমাম টেম্পারেচার 70.6, এভারেজ 66.9।

Deepcool CH370Deepcool CH370

আসলে কেস টি দেখলেও বোঝা যায় যে কুলিং পারফরমেন্স টা কতটা পজিটিভ রিফ্লেক্ট করবে। কিন্তু তৎকালীন সময়ের ৪১/৪২ ডিগ্রি এর গরমে কিছুটা পেনাল্টি ফেস করতে হয়, তবুও টেম্পারেচার গুলো দেখলেই বুঝা যায় যে এর Airflow বেশ পজিটিভ। 

তাছাড়া বিল্ড করার সময় কেবল ম্যানেজমেন্ট এ তেমন অসুবিধা হয়নি, কেবল রাউটিং এর জন্য এনাফ ক্লিয়ারেন্স ছিলো, তাছাড়া অসংখ্য কেবল টাই হোল থাকার কারণে বেশ ইজিলি ক্যবল গুলো গুছানো গিয়েছে।

Pros

এই কেস টি কাদের জন্য? যারা ছোটখাটো থেকে শুরু মিড রেঞ্জ গেমিং বা ওয়ার্কস্টেশন পিসি বানাতে চান তারা এই কেসটি অবশ্যই বিবেচনা করতে পারেন। কারণ কেসটিতে বেশ ভালো একটা এয়ারফ্লো ফ্যাসিলিটি রয়েছে। তাছাড়া যারা লুক নিয়েও একটু ইনসিকিউর, পাছে লোকে কিছু বলে কিনা সেই ভয়ে থাকেন তারা অবশ্যই কেস টি কিনতে পারেন।

ভালো একটা এয়ারফ্লো ফ্যাসিলিটি থাকার কারণে ভিতরের কম্পোনেন্ট গুলোর একটা কুলিং ভাইব এর সাথে ভালো পটেনশিয়াল পারফরম্যান্স টেনে নেওয়া যাবে।

Cons

নিটপিকিং এর জায়গা বলতে তেমন কিছু নেই কেস টায়। এই প্রাইসে ডেডিকেটেড ক্যাবল ম্যানেজমেন্ট পাথ এবং ভেলক্র টাই দিলে আহামরি কি ক্ষতি হতো তা জানতে পারলে ভালো হতো। চাইলে আরেকটা ফ্যান দিয়ে তারা এই কেস টা রিটেইল সেল করতে পারে। মেটাল কোয়ালিটি টা বা থিকনেস নিয়ে তারা আরেকটু কন্সার্ন হলে ভাল হতো। 

 

- Advertisement -
Iqbal H. Talha
Iqbal H. Talha
Well, still a novice. Tryna learn things everyday. Thats all.

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here