27 C
Dhaka
Wednesday, May 22, 2024

AMD লঞ্চ করতে যাচ্ছে Ryzen 5000 সিরিজের আরো ৩টি প্রসেসর

- Advertisement -

হুট করেই AMD লঞ্চ করতে যাচ্ছে  AM4 Platform এর  Ryzen 5000 সিরিজ বা Zen3 এর ৩টি প্রসেসর। একদম এন্ট্রি লেভেলের  প্রসেসর থেকে শুরু করে এই প্রসেসরগুলোর মধ্যে রয়েছে একটি কোয়াড কোর  প্রসেসর, একটি অক্টাকোর প্রসেসর ও একটি ৬ কোরের 3D V-Cache যুক্ত প্রসেসর।

AM4 প্লাটফর্ম কে আবারো জীবিত করে তুললো AMD: ৩টি প্রসেসর লঞ্চ

AM4 প্লাটফর্মের পড়ন্ত বিকেল যেন শেষই হচ্ছে না, বিকেল শেষে যেন সন্ধ্যা নামছেই না। ৭০০০ সিরিজ লঞ্চ হওয়ার অনেক মাস হয়ে গিয়েছে, AM4 প্লাটফর্ম পেরিয়ে এখন AM5 প্লাটফর্ম এর যুগ চলছে।। DDR4 কে আস্তে আস্তে প্রতিস্থাপিত করছে DDR5, এত কিছুর পরেও যেন AM4 platform এর শেষটা হয়েও হচ্ছে না।

- Advertisement -

অন্যভাবে বলতে গেলে AMD শেষ হতে দিচ্ছে না, তাদের স্টক থেকে আরো ৩টি অপ্রকাশিত নতুন অস্ত্র সামনে এসেছে সম্প্রতি। । AM4 প্লাটফর্মের ৩টি প্রসেসর লঞ্চ করতে যাচ্ছে তারা। Zen3 আর্কিটেকচারের ,৫০০০ লাইনআপের এই ৩টি প্রসেসর হলোঃ Ryzen 3 5100, Ryzen 5 5600X3D ও Ryzen 7 5700। চলুন দেখে নেওয়া যাক প্রসেসর ৩টির খুটিনাটি ।

Ryzen 3 5100:

মডেল দেখেই বোঝা যাচ্ছে এটা এন্ট্রি লেভেল এর প্রসেসর ও Ryzen 3 Brand Modifier এর অন্তর্ভুক্ত। এটি একটি চার কোর আট থ্রেডের প্রসেসর। সাথে আছে ৮ মেগাবাইট এর লেভেল ৩ ক্যাশ। প্রসেসরটির বুস্ট ক্লক ৪.২ গিগাহার্জ ও বেইস ক্লক ৩.৮ গিগাহার্জ। অনুমিত ভাবেই এতে থাকছে না কোনো integrated GPU। ৬৫ ওয়াটের TDP যুক্ত এই Cezenne familly এর প্রসেসরটি 7nm প্রসেসে তৈরী। স্পেসিফিকেশন গুলো নিশ্চিত করেছে Gigabyte।

এখনো পর্যন্ত Ryzen 3 এর 5100 এর দাম,এভেইলেবল হওয়ার দিন তারিখ সম্পর্কে জানা যায়নি। প্রসেসরগুলো Mainstream market এ আসবে নাকি OEM মার্কেটেই সীমাবদ্ধ থাকবে সে সম্পর্কেও এখনো নিশ্চিতভাবে বলা যাচ্ছে না।

- Advertisement -

Ryzen 7 5700

এটি একটি ৮ কোর ১৬ থ্রেডের প্রসেসর। আমরা পুর্বে যেমন Ryzen 5 5600 দেখেছি, 5600x এর ডাউন গ্রেডেড সংস্করণ, ঠিক সেরকমই এই প্রসেসরটি, অর্থাৎ 5700x এর থেকে কিছুটা নিচে অবস্থান করবে এটা স্পেকস ও পারফর্মেন্স এর দিক দিয়ে।।

Ryzen 7 5700 এর বেস ক্লক 3.7 Ghz ও বুস্ট ক্লক 4.6 Ghz। রয়েছে ১৬ মেগাবাইট এর ক্যাশ,এটির পাওয়ার লিমিট ৬৫ ওয়াট। অন্যদিকে 5700x এর বেস ক্লক 3.4 Ghz ও  বুস্ট ক্লক 5700 এর মতই, কিন্ত এটির ক্যাশ মেমোরির পরিমাণ ৩২ মেগাবাইট ও পাওয়ার কনসাম্পশন ও 5700 এর মতই,৬৫ ওয়াট।

এটার ও প্রাইসিং ও মার্কেট এভেইলেবিলিটি নিয়ে কিছু এখনো জানা যায়নি।

- Advertisement -

AMD Ryzen 5 5600X3Dঃ ইতিমধ্যেই লঞ্চ হয়ে গিয়েছে।

5600X3D সম্পর্কে আমরা আগেও আলোচনা করেছি।মাইক্রোসেন্টার এক্সক্লুসিভ হিসেবে লঞ্চ এটি লঞ্চ করেছে AMD। এর দাম ২৩০ ডলার। 5600x এর সাথে 5600X3D এর পার্থক্যটা নিচের ছবিটির দিকে তাকালেই স্পষ্ট হয়ে যাবে। ছবিটি Gamers Nexus থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে।

মুল পার্থক্যের জায়গাটা অবশ্যই অতিরিক্ত ৬৪ মেগাবাইট এর ক্যাশ মেমোরি। এর পাশাপাশি ২০০ মেগাহার্জ কম বুস্ট ক্লক ও ৪০০ মেগাহার্জ কম বেস ক্লক উল্লেখযোগ্য। আরেকটি চোখে পড়ার মত পার্থক্য হচ্ছে TDP, 5600X এর টিডিপি ছিল ৬৫ ওয়াট, সেখানে 5600X3D এর টিডিপি ৪০ ওয়াট বেশি। 5800x3d এর মত 5600x3d কেও ওভারক্লক করা যাবে না।

এই প্রসেসরটির পারফর্মেন্স ও বেশ ভালো, যারা AM4 প্লাটফর্মে আছেন ও 7000 সিরিজের 7600 এর মত প্রসেসর এ আপগ্রেড করতে চাচ্ছেন, তাদের জন্য DDR4 প্লাটফর্মে থেকে ও মাদারবোর্ড পরিবর্তন না করেই 7600 এর থেকে বেটার গেমিং পারফর্মেন্স পাওয়ার সুযোগ করে দিতে পারে এই প্রসেসরটি। 3600,3500x,3700,3700x,5500 ,5600 এর মত প্রসেসর থেকে আপগ্রেড করা যেতে পারে এই প্রসেসরে। Gamers nexus ও Jays2cents এর কিছু পারফর্মেন্স বেঞ্চমার্ক নিচে দেওয়া হলো, এখান থেকে আপনারা কিছুটা ধারণা পাবেন এই প্রসেসরটির গেমিং পারফর্মেন্স এর সম্পর্কে।

এখান থেকে এটা স্পষ্ট যে গেমিং এ  5600X3D 7000 সিরিজের প্রসেসরগুলোর মত কিংবা অনেক ক্ষেত্রেই সেগুলোর থেকে বেশ ভালো পারফর্মেন্স দিচ্ছে।। যারা 1080p বা 1440p তে গেম খেলতে চান তাদের জন্য কম বাজেটে DDR4 বিল্ডে অসাধারণ একটি প্রসেসর হতে পারে 5600X3D।

এটা বাজারে আসবে কি?

যেহেতু AMD এই প্রসেসরটিকে একটি নির্দিষ্ট শপের এক্সক্লুসিভ প্রোডাক্ট হিসেবে লঞ্চ করেছে, তা অফিশিয়াল চ্যানেলে বাংলাদেশে আসার একেবারেই সুযোগ নেই। অর্থাৎ শীর্ষস্থানীয় শপগুলো বলতে আমরা যেসব শপ বুঝে থাকি যেমন স্টারটেক, টেকল্যান্্‌ স্কাইল্যান্ড, রায়ান্স ইত্যাদি, এসব শপে এই প্রসেসর পাওয়ার কোনো সুযোগ নেই।।

তবে অনেক ইম্পোর্টার আছেন ব্যক্তিগত উদ্যোগে প্রসেসর সহ অন্যান্য কম্পোনেন্ট ইম্পোর্ট করে বিক্রি করে থাকেন, এই সমস্ত পেজ বা ছোট খাট ইম্পোর্টার এর কাছে হয়তো প্রি অর্ডার ভিত্তিতে এই প্রসেসর কেনা যেতে পারে।। সেক্ষেত্রে ডলার এর রেট, ও বাংলাদেশে প্রাইসিং ট্রেন্ড বিবেচনায় নিলে হয়তো আপনাকে ২৭-২৯ হাজারের আশেপাশে খরচ করতে হতে পারে।

আর আরেকটি উপায় হচ্ছে, যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানরত আপনার বন্ধু/আত্মীয় কিংবা পরিচিতজন কে দিয়ে এই প্রসেসর আনিয়ে নেওয়া। লিংকঃmicrocenter

- Advertisement -

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here