ন্যায্যমূল্যে সঠিক স্পেসিফিকেশনের স্মার্টফোন বাজারে বের করার ক্ষেত্রে শাওমি, রিয়ালমি এইসব ব্রান্ডের বেশ সুনাম এবং জনপ্রিয়তা রয়েছে। বর্তমানে তাদের পাশাপাশি অনান্য ব্রান্ডগুলোও (যেমন আসুস) এই কমদামে বেশি “স্পেসিফিকেশনের” স্মার্টফোনগুলো বাজারে আনা শুরু করেছে। তাদের মধ্যে Huawei এর সাব-ব্রান্ড Honor অন্যতম। সম্প্রতি মিডরেঞ্জ প্রাইস পয়েন্টে গেমিং স্মার্টফোন Honor Play ডিভাইসটির মাধ্যমে ব্রান্ড আলোচনায় এসেছিলো। কিন্তু ব্রান্ডটির নতুন স্মার্টফোন Honor View 20 চায়নাতে লঞ্চ হয়েছে, যেটায় রয়েছে “সুলভমুল্যে” ফ্ল্যাগশীপ স্পেসিফিকেশন! ডিভাইসটি ২০১৯ সালের জানুয়ারীর শেষের দিকে আর্ন্তজাতিকভাবে লঞ্চ হবার কথা রয়েছে।

ডিভাইসটি Honor View 10 এর সাকসেসসর হিসেবে এসেছে। Honor View 10 ডিভাইসটিও একটি বেশ টাইট বাজেটের স্মার্টফোন ছিলো কিন্তু সেই ডিভাইসের ডিজাইন ক্রেতাদের তেমন মনপূত করতে পারেনি। আর তাই এবারের View ডিভাইসটির ডিজাইনে বেশ নজর দিয়েছে Honor, ভিউ ২০ ডিভাইসটি সামনের দিক থেকে দেখতে বেশ সুন্দর এবং পরিপাটি লাগছে এবং পেছনের দিকটাও মন্দ নয়। ডিভাইসটি তৈরি করা হয়েছে সম্পূর্ণ মেটাল দিয়ে, এর পেছনের সাইডে রয়েছে reflective surface যেখানো আলো পড়লে একটি V শেইপের মাল্টি-লেয়ার সুপার মাইক্রো প্যাটান দেখা যাবে। ডিভাইসটি Midnight Black, Phantom Blue এবং Phantom Red এই তিনটি রংয়ে পাওয়া যাবে।

আর ডিভাইসটির সামনে দিকে রয়েছে Punch Hole ডিজাইন! হ্যাঁ এই ডিজাইনের রিলিজকৃত এইটাই হচ্ছে প্রথম স্মার্টফোন, স্যামসংয়ের গ্যালাক্সি এস১০ ডিভাইসে এই ডিজাইনের জন্য মুখিয়ে থাকলেও ইতিমধ্যেই Honor View 20 স্যামসংয়ের আগেই Punch Hole ডিজাইনের স্মার্টফোন রিলিজ করে ফেলেছে। ডিভাইসটিতে রয়েছে ৬.৪ ইঞ্চির 19:25.9 aspect রেশিও All-View Display, এই ডিসপ্লেকে Honor তাদের নতুন Full HD+ রেজুলেশন বলছে। ডিভাইসটিতে রয়েছে 91.8 শতাংশের screen-to-body রেশিও। Punch Hole In-screen এর সামনের ক্যামেরার কোয়ালিটিও বেশ ভালো এবং টেকনিক্যালভাবেও ইতিমধ্যেই ইম্প্রেশন তৈরি করে ফেলেছে। পাঞ্চ হোল ডিজাইনটি হাতে নিলে তেমন বিরক্তিকর মনে হবে না আর ধারণা করা হচ্ছে Honor এর আপকামিং সকল ফ্ল্যাগশীপ ডিভাইসে এই পাঞ্চ হোল ডিজাইনটি থাকতে পারে।

ক্যামেরার ব্যাপারে বলতে গেলে সামনের দিকে আপনি পাচ্ছেন ২৫ মেগাপিক্সেলের লেন্স এবং পেছনের দিকে পাচ্ছে AI Vision টেকনোলজির ৪৮ মেগাপিক্সেলের লেন্স। আর পেছনের এই ৪৮ মেগাফিক্সেল লেন্সটি বেশ ইউনিক কারণ বিশ্বের প্রথম স্মার্টফোন হিসেবে ডিভাইসতে ব্যবহৃত হয়েছে Sony IMX586 সেন্সর। সাথে পাবেন 3D Time-of-Flight সেন্সর যেটা bokeh এবং portrait শটের distance মাপার কাজে ব্যবহৃত হবে। আর রাত্রের Low light ছবি তোলার জন্য ডিভাইসটিতে ব্যবহৃত হবে 4-into-1 pixel binning এবং Huawei এর নিজস্ব A.I. স্ট্যাবিলাইজেশন ফিচার ব্যবহার করা হবে।

এবার আসি স্পেসিফিকেশনে। ডিভাইসটিতে আপনি পাবেন ৬ গিগাবাইট এবং ৮ গিগাবাইট র‌্যাম, ইন্টারনাল স্টোরেজ হিসেবে পাবেন ১২৮ গিগাবাইট কিংবা ২৫৬ গিগাবাইট মানে এটা Huawei Mate 20 এবং Mate 20 Pro এর ঠিক সমান র‌্যাম এবং রম দেওয়া রয়েছে। আরো রয়েছে Dual NPU (Neural Processing Unit) যা ডিভাইসটির যাবতীয় AI ফিচারগুলোকে সামাল দেবে। এছাড়াও ডিভাইসটিতে রয়েছে Liquid Colling, Triple-antenna Wi-Fi এবং Dual-Frequency GPS।
প্রসেসর হিসেবে ডিভাইসটিতে রয়েছে Huwei এর নিজস্ব HiSilicon Kirin 980 অক্টাকোর চিপসেট। এটি একটি 7nm প্রযুক্তির চিপসেট যেটায় বেশ কম বিদ্যুৎ ব্যবহৃত হবে। ব্যাটারি হিসেবে রয়েছে 4000 mAh ক্ষমতার নন রিমুভেবল ব্যাটারি। আর অনান্য ফ্ল্যাগশীপ ডিভাইসের মতোই এই ডিভাইসেও Out of Box অ্যান্ড্রয়েড পাই (Android 9) পেয়ে যাবেন। ডিভাইসটির বিস্তারিত স্পেসিফিকেশন দেখে আসুন gsmarena থেকে।

আর দামের ব্যাপারে বলতে গেলে ডিভাইসটি যেহেতু এখনো আন্তর্জাতিকভাবে লঞ্চ হয়নি তাই ইন্টারন্যাশনাল প্রাইসিং এখনো জানা যায় নি। তবে চীনের প্রাইস অনুযায়ী ডিভাইসটির ৬ গিগাবাইট র‌্যাম এবং ১২৮ গিগাবাইট স্টোরেজ মডেলটির দাম রয়েছে ৪৩৫ মার্কিন ডলার এবং ৮ গিগাবাইট রাম ও ১২৮ গিগাবাইট স্টোরেজ মডেলটির দাম রাখা হয়েছে ৫১০ মার্কিন ডলার। ডিভাইসটির সবোর্চ্চ মডেল Moschino Variant যেটায় রয়েছে ৮ গিগাবাইট র‌্যাম এবং ২৫৬ গিগাবাইট স্টোরেজ সেটার দাম রাখা হয়েছে ৫৮০ মার্কিন ডলার।

Mi Play Phone Details