Razer ব্রান্ডের স্মার্টফোন গতবছর Razer Phone নামে বাজারে এসেছিলো। গেমিং স্মার্টফোন ট্যাগলাইনে ফোনটি বাজারে ছাড়ে Razer , অনান্য ডিভাইসের থেকে উচ্চমানের সাউন্ড কোয়ালিটি, ১২০ হার্জের ডিসপ্লে এবং স্মার্টফোনকে গেমিং এবং হেভিটাস্ক করার সময় ঠান্ডার রাখার জন্য ইউনিক ফিচার নিয়ে বাজারে এসেছিলো রেজার ফোন। আর কিছুদিন আগে ফোনটির পরবর্তী সংষ্করণ মানে আপগ্রেডেড সংষ্করণ Razer Phone 2 এনাউন্স করলো। ডিভাইসটি আমেরিকার মার্কেটে অক্টোবর ২২ (২০১৮) তারিখে মুক্তি দেওয়ার কথা রয়েছে। এখন কথা হচ্ছে গেমিং স্মার্টফোন হিসেবে Razer Phone 2 কতটা গ্রহণযোগ্য আর যারা যারা আগের ভার্সনটি (Razer Phone) ব্যবহার করছেন তাদের জন্য কি এই আপগ্রেডেড ভার্সনে চলে আসা উচিত কিনা সেটা নিয়েই আজকের পোষ্টে সংক্ষেপে আমি আলোচনা করবো।

তো নতুন কি কি থাকছে Razer Phone 2 তে? প্রথম ডিভাইসটিতে ক্যামেরার কোয়ালিটি অতটা ভালো ছিলো না বিধায় Razer Phone 2 ডিভাইসে সর্বপ্রথম ক্যামেরা সেক্টরে কিছুটা আপগ্রেড আনা হয়েছে। তারপর ডিভাইসটি ডিসপ্লে কোয়ালিটিতেও আপনি আগের ডিভাইসটির থেকে কিছুটা আপগ্রেড পাবেন। আর নতুন ফিচার হিসেবে পাবেন Glass Back মানে ডিভাইসটি এখন ওয়্যারলেস চার্জিং ফিচার সার্পোট করবো, আর ওয়্যারলেস চার্জারেও পাবেন লাইটিং ফিচার, যা দেখতে বেশ চমৎকার।

রেজারের ভাষ্যমতে এটা শুধু একটি গেমিং স্মার্টফোন নয়, বরং এই ডিভাইসটি দিয়ে কোম্পানিটি অনান্য ব্রান্ডের ফ্ল্যাগশীপ স্মার্টফোনের সাথে প্রতিযোগীতায় নামতে চায়। ডিভাইসটির স্পেসিফিকেশন দেখে আপনিও একই কথা মনে করবেন। ডিভাইসটিতে রয়েছে ৫.৭২ ইঞ্চির QHD ডিসপ্লে, স্ন্যাপড্রাগন ৮৪৫ চিপসেট, ৮ গিগাবাইট র‌্যাম, ৬৪ গিগাবাইটের স্টোরেজ সাথে রয়েছে মাইক্রোসএসডি কার্ড স্লট, পেছনে পাবেন দুটি লেন্সের ক্যামেরা সিস্টেম, 4000 mAh ব্যাটারি এবং IP67 ডাস্ট এবং ওয়াটার resistance ফিচারও আপনি পাবেন এই ডিভাইসটিতে। আগের ডিভাইসটির মতোই এই ডিভাইসেও একদমই ইউনিক একটি ফিচার পাবেন যেটা হলো এর ডিসপ্লে কোয়ালিটি, ১২০ হার্জের ডিসপ্লে যা দেখতে অনেক চমৎকার এবং এই কোয়ালিটির ডিসপ্লে আপনি অন্য কোনো স্মার্টফোনে এখন পর্যন্ত পাবেন না।  এছাড়াও ডিভাইসের পেছনে এখন লাইটিং Chroma লোগো রয়েছে যেটাকে আপনি পছন্দমতো লাইটিং ইফেক্ট দিয়ে রাখতে পারবেন।

তবে হতাশার বিষয় হচ্ছে সিরিজের আগের ডিভাইসের থেকে কিছু কিছু ক্ষেত্রে আপনি আপগ্রেড পেলেও দামের ক্ষেত্রেও কিন্তু ডিভাইসটিকে আপগ্রেড করা হয়েছে! মানে আগের ডিভাইসের থেকে এর দাম প্রায় ১০০ মার্কিন ডলার বেশি রাখা হয়েছে। ডিভাইসটির আমেরিকান মার্কেটে দাম রাখা হয়েছে ৭৯৯ মার্কিন ডলার, বাংলাদেশে এসে যার দাম পড়তে পারে প্রায় ৭৬,৫০০ টাকা। তো বলা বাহুল্য যে, এটা কোনো মধ্যম বাজেটের স্মার্টফোন নয়।

ডিজাইন

ডিজাইনের দিক থেকে বলতে গেলে রেজার ফোন ২ এর ডিজাইন অধিকাংশ ক্ষেত্রেই আগের ফোনটির মতোই আপনি দেখতে পাবেন। উপরে নিচে বড় সাইজের বেজেল এবং পাওয়ারফুল স্পিকারের ডিজাইন সবই ডিভাইসটিতে রয়েছে। সাইডের দিকে স্কোয়ার স্টাইলের edge স্টাইল পাবেন। এছাড়াও সাইডের দিকে পাওয়ার/লক বাটনের সাথে পাবেন ফিঙ্গার প্রিন্ট স্ক্যানার, যা অনান্য স্মার্টফোনের থেকে একটু আলাদা। অনান্য স্মার্টফোনে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর কে পেছনে, সামনের হোম বাটনে এবং কিছু কিছু ডিভাইসের In-Display ফিঙ্গার প্রিন্ট দেওয়া থাকে, তবে এক্ষেত্রে রেজার ফোন ২ ডিভাইসের পাওয়ার বাটনের উপরেই পাবেন ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর।

পেছনের দিকে আসলে দেখবেন যে দুটি ক্যামেরা লেন্সের মাঝখানে ফ্ল্যাশলাইট দিয়ে ডিজাইন করা হয়েছে। এই ডিজাইনটি কয়েক বছর আগের স্মার্টফোনগুলোতে ছিলো। তবে Glass দিয়ে তৈরি এই ডিভাইসের ব্যাকপার্টটি হাতে নিলে আপনার কাছে প্রিমিয়াম ফিল  হবেই (হওয়া উচিত! ৭০ হাজার+ টাকা খরচ করছেন এর পিছনে!) আর ব্যাকপার্টকে আরো আকর্ষণীয় করেছে Chroma লোগোটি। সিরিজের আগের ডিভাইসেও এই লোগোটি ছিলো কিন্তু এবার এই লোগোটিতে লাইটিং ফিচার আনা হয়েছে। আর লাইটিংয়ের রং কি হবে সেটাও কিন্তু আপনি নিজের মতো করে কাস্টমাইজেশন করে নিতে পারবেন! তবে এখানে একটি বিষয় মাথার রাখতে হবে যে, এই RGB লাইটিং ফিচারটি দেখতে সুন্দর হলেও সেইরকম পরিমাণে ব্যাটারি খাবে, আর একটি গেমিং স্মার্টফোনের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে ব্যাটারি লাইফ।

ডিভাইসে কোনো হেডফোন জ্যাক নেই, বরং ডিভাইসটিকে রয়েছে শুধুমাত্র একটি পোর্ট মানে USB-C কানেক্টশন পোর্ট। তবে ডিভাইসের বক্সে আপনি একটি headphone এডাপ্টার পাবেন আর এডাপ্টারে রয়েছে 24-bit DAC যা আপনাকে উন্নত অডিও কোয়ালিটি উপহার দিতে পারবে। ডিজাইন দিক থেকে শেষ কথা হলো, ক্যামেরার স্থানটি পরিবর্তন হওয়া ছাড়া গত বছরের Razer Phone টির থেকে ডিজাইনের দিকে তেমন কোনো পরিবর্তন আনা হয়নি Razer Phone 2 ডিভাইসে, আর চার্জ চুষা RGB লাইটিং লোগোর কথা আলাদা! আর গত ফোনটির মতোই Razer Phone 2 তেও কোনো প্রকার নচ সিস্টেম থাকছে না!

ডিসপ্লে

ডিসপ্লের দিক থেকেও গত বছরের Razer Phone এর ৫.৭ ইঞ্চির QHD 120Hz UltraMotion ডিসপ্লেটাই রয়েছে রেজার ফোন ২ ডিভাইসে। আর ১২০ হার্জের ডিসপ্লেতে চমৎকার ছবি কোয়ালিটি ছাড়ার আপনি Latency Free গেমিং, এক্সট্রিম স্মুথ স্ক্রলিং এবং 8ms রেসপন্স রেট ফিচারগুলো পাবেন। বর্তমানের ফ্ল্যাগশীপ এবং প্রিমিয়াম স্মার্টফোনগুলোতে 18:9 এবং এর থেকে উচ্চমানের স্ক্রিণ রেশিও থাকলে রেজার তাদের এই ফোনটিতেও 16:9 স্ক্রিণ রেশিওতেই থেকেছে।

আগের ডিভাইসের থেকে রেজার ফোন ২ এর ডিসপ্লে তে উল্লেখযোগ্য আপগ্রেড হচ্ছে যে এই ডিভাইসে আপনি ৫০% বেশি উজ্জলতা পাবেন মানে Razer Phone এর থেকে Razer Phone 2 ডিভাইসে 50% বেশি Brightness রয়েছে। ডিভাইসে ৬৪৫  nits পর্যন্ত ব্রাইটনেস বাড়ানো যাবে, তাই উজ্জল পরিবেশে বা বাইরের পরিবেশে ডিভাইসটি চালাতে আর তেমন কোনো সমস্যা হবে না। এছাড়াও ডিভাইসের স্ক্রিণে আনা হয়েছে HDR সার্পোট, তাই হাই কোয়ালিটির ভিডিও দেখার সময়ও আপনি এই HDR এর স্বাদ উপভোগ করতে পারবেন।

আরেকটি বিষয় নোট করে রাখেন তা হলো, এই ডিভাইসে কোনো LED প্যানেল ব্যবহার করা হয়নি, বরং LCD প্যানেল ব্যবহার করা হয়েছে। তবে ১২০ হার্জের ডিসপ্লে রিফ্রেশ রেটের কারণে সত্যি কথা বলতে গেলে বর্তমানের কোনো স্মার্টফোনে এই ডিভাইসের থেকে চমৎকার ডিসপ্লে আপনি পাবেন না।

ব্যাটারি

আগের ফোনের মতোই এবারের ডিভাইসেও 4000mAh ক্ষমতার ব্যাটারি ব্যবহার করা হয়েছে। একটা গেমিং স্মার্টফোনে 5000mAh ব্যাটারি থাকলে ভালো হতো। তবে একই সাথে আরো উজ্জল স্ক্রিণ এবং RGB লাইটিং লোগোর কারণে ব্যাটারি ইউজেস আরো বেশি হবে এবং যার ফলে আগের ডিভাইসের থেকে বেশি চার্জ খরচ হতে পারে ডিভাইসটিতে। তবে একই সাথে ডিভাইসটিতে আপনি  পাবেন Quick Charge 4+ ফিচার যার মাধ্যমে খুব দ্রুত সময়েই ডিভাইসটিকে চার্জ দিয়ে নিতে পারবেন।

আর একই সাথে Glass ব্যাক হওয়ায় ডিভাইসটিতে প্রথমবারের মতো থাকছে ওয়্যারলেস চার্জিং ফিচার! আর ডিভাইসটিকে ওয়্যারলেস ভাবে চার্জ দেবার জন্য রেজার নিজস্ব চার্জিং প্যাড, আর এই প্যাডেও আপনি পাবেন RGB লাইটিং ফিচার! তবে এখানে লাইটিং ফিচারকে অন/অফ করার অপশন আপনি পাবেন।

ক্যামেরা

ক্যামেরার স্পেসিফিকেশন যদি দেখেন তাহলে একই স্টাইলের ডুয়াল ১২ মেগাপিক্সেলের ব্যাক ক্যামেরা আপনি পাবেন রেজার ফোন ২ তে টা আগের ডিভাইসেও ছিলো। কিন্তু এখানে কিছু আপগ্রেড আনা হয়েছে। প্রথমত সেন্সরের ক্ষেত্রে এই ডিভাইসে Samsung এর জায়গায় Sony ব্রান্ডের ক্যামেরা সেন্সর ব্যবহার করা হয়েছে, Wide-angle লেন্সের জন্য OIS (Optical image stabilization) ফিচারকেও আপগ্রেড করা হয়েছে, ফ্ল্যাশ লাইটকেও কিছুটা আপগ্রেড করা হয়েছে আর সফটওয়্যার আপগ্রেড তো রয়েছেই। মানে হচ্ছে আগের ডিভাইসের থেকে তুলনামূলক ভাবে ভালো এবং চমৎকার ছবি তুলতে পারবেন রেজার ফোন ২ তে। অন্যদিকে সামনের ক্যামেরাতে এবার ফুল HD ভিডিও রেকর্ড করা যাবে 60FPS স্পিডে, গেমাররা গেম খেলার সময় ব্রডক্যাস্ট এর জন্য নিজেদেরকে যাতে সুন্দর করে রেকর্ড করতে পারে যে জন্যই এই ফিচারটি রেজার তাদের এই ডিভাইসে নিয়ে এসেছে।

পরিশিষ্ট

গেমিং স্মার্টফোন হিসেবে Razer Phone 2 বর্তমানের একটি পারফেক্ট র্স্মাটফোন! স্ন্যাপড্রাগন ৮৪৫ চিপসেট এবং ৮ গিগাবাইট র‌্যাম এই ডিভাইসে থাকায় মাল্টিটাস্কিং এবং গেমিং করার সময় আপনি কোনো প্রকার ল্যাগ বা খোঁট পাবেন না। এছাড়াও ডিভাইসটিতে রয়েছে Game Booster নামের একটি অপশন (যেটা আগের ডিভাইসেও ছিলো), এই অপশনটির মাধ্যমে ডিভাইসের ইন্সটলকৃত প্রতিটি গেমের জন্য নিজে থেকেই আলাদা করে রেজুলেশন, রিফ্রেশ রেট সহ বিভিন্ন সেটিংস কাস্টমাইজেশন করার সুবিধা। আর নতুন অ্যাপ হিসেবে পাবেন Razer Cortex । এটা অনেকটা অ্যাপ স্টোরের মতো যেখানে রেজার ফোন ২ এর জন্য বেস্ট গেমসগুলোর লিস্ট আপনার সামনে এনে দেবে।

ডিভাইসটিতে অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে পাবেন অ্যান্ড্রয়েড ৮.১ অরিও। তবে যেহেতু বর্তমানে অ্যান্ড্রয়েড ৯ Pie লেটেস্ট রয়েছে তাই এখানেও ডিভাইসটি কেনার সাথে সাথেই লেটেস্ট অ্যান্ড্রয়েড আপনি পাবেন না, রেজার বলেছে অতি শীঘ্রই অ্যান্ড্রয়েড ৯ আপগ্রেড আসছে ডিভাইসটিতে তবে কবে আসছে সেটা এখনো নিশ্চিত করা হয়নি। গেমিং ডিভাইস হিসেবে স্টোরেজ ৬৪ গিগাবাইট রাখা হয়েছে ডিভাইসটিতে যা কয়েকটি এইচডি গেমস ইন্সটল করলেই ভরাট হয়ে যাওয়াটা অস্বাভাবিক কিছু না, তবে মজার ব্যাপার হচ্ছে এই ডিভাইসের microSD কার্ড স্লটে আপনি ২ টেরাবাইট সাইজের মেমোরি কার্ড ব্যবহার করতে পারবেন! আপনার জন্য শুভ কামনা রইলো!

Razer Phone 2 vs Razer Phone