25 C
Dhaka
Wednesday, February 8, 2023

Samsung নিয়ে এল Note 20 Series

- Advertisement -

প্রতিবছর অগাস্ট মাসে Samsung তাঁদের note সিরিজের নতুন ফোন নিয়ে আসে। এইবার মহামারী চলাকালীন সময়েও এর ব্যতিক্রম হয়নি। ৫ই’অগাস্ট Samsung এক ভার্চুয়াল ইভেন্টের মাধ্যমে Note 20 series এনাউন্স করে। যেখান রয়েছে দুইটি ফোনঃ Samsung Note 20, Samsung Note 20 Ultra। ফোন দুইটির বিস্তারিত স্পেসিফিকেশন, এদের মধ্যে তুলনামূলক কম্পারিজন, কালার ভ্যারিয়েন্ট ও ইন্টারন্যাশনাল প্রাই্সিং ইত্যাদি নিয়েই আজকের আর্টিকেল।

Samsung note 20/note 20 Ultra – চিপসেট

ফোন দুইটিতেই সেইম চিপসেট ইউস করা হয়েছে তা হচ্ছে- Snapdragon 865+ এবং Exynos 990। বরাবরের মতই স্যামসাং এখানেও ভিন্ন ভিন্ন রিজিওনের জন্য ভিন্ন চিপসেট ব্যবহার করবে। আমেরিকা,চিন,কোরিয়া ও জাপানের জন্য Snapdragon। ইউরোপ এন্ড বাদ বাকি রিজিওনের জন্য Exynos। তবে Snapdragon 865+ এর cortex a77 কোরের ক্লক স্পিড ৩.০ গিগাহার্টজ করে দেওয়া হয়েছে কিন্তু Snapdragon 865+ এর cortex a77 কোরের ক্লক স্পিড হচ্ছে ৩.১ গিগাহার্টজ যা আমরা কোয়ালকমের অফিশাল স্পেক্স থেকেই জানি। স্যামসাং হয়ত পাওয়ার ইফিশিয়ান্ট করার জন্য এই কাজটি করে থাকতে পারে। কিন্তু 3x Cortex-A77 @ 2.42GHz ও 4x Cortex-A55 @ 1.80GHz কোর গুলো যথারীতি রয়েছে। সাথে Adreno 640 জিপিউ থাকছে।

- Advertisement -

অন্যদিকে Exynos 990 এ ২টি Exynos M5 কোর যাদের ক্লক স্পিড 2.73GHz, ২টি Cortex-A76 কোর যাদের ক্লক স্পিড 2.50GHz ও ২টি Cortex-A55 কোর যাদের ক্লক স্পিড 2.00GHz। গ্রাফিক্স প্রসেসিং ইউনিট হিসেবে থাকছে Mali G77MP11 যার ক্লক স্পিড 800 MHz।

Samsung note 20/note 20 Ultra – র‍্যাম + স্টোরেজ

র‍্যাম ও স্টোরেজ সাথে LTE/5Gকে মিশিয়ে জগা খিচুড়ি অবস্থা। সহজ ভাষায় কনফিউশন এড়ানো যায় এমনভাবে বললে যা দাঁড়ায় তা হচ্ছে।  LTE ও 5G এর ভিত্তিতে আলাদা র‍্যাম ও স্টোরেজ চুজ করার অপশন থাকছে কিন্তু কিছু ক্ষেত্র কম্বিনেশন গুলো অদ্ভুদ।

Samsung note 20 এর ক্ষেত্রে র‍্যাম এর ফিক্সড অর্থাৎ ৮জিবি LPDDR5 এর র‍্যাম
কিন্তু স্টোরেজের ক্ষেত্রে 5G ভ্যারিয়েন্টে 128/256GB দুইটি অপশান থাকছে। কিন্তু LTE তে শুধু মাত্র 256GB

- Advertisement -

অন্যদিকে

Samsung note 20 ultra এর ক্ষেত্রে র‍্যাম 5G ভ্যারিয়েন্টে 12GB এবং LTE ভ্যারিয়েন্টে 8GB। স্টোরেজে 5G ভ্যারিয়েন্টে 128/256/512GB তিনটির অপশান কিন্তু LTE ভ্যারিয়েন্টে 256 or 512GB তেই সীমাবদ্ধ।

note 20 এর স্টোরেজ UFS3.0 অন্যদিকে ultra এর UFS3.1। এক্সট্রা এক্সপানশন স্লট থাকছে শুধুমাত্র samsung note 20 ultra তে।

Samsung note 20/note 20 Ultra – ডিসপ্লে

- Advertisement -

এখানে দুইটি ফোনে যোজন যোজন দূরত্ব রয়েছে। প্রথমে note 20 দিয়ে শুরু করা যাক-

৬.৭ ইঞ্চির ডিসপ্লের ফোনটির FHD+ রেজ্যুলেশন সাপোর্টেড যা সুপার এমোলেডের। কিন্তু ডাউনসাইড হচ্ছে এতে কার্ভ ডিসপ্লের বদলে দেওয়া হয়েছে ফ্ল্যাট ডিসপ্লে এবং রিফ্রেশ রেইট ৬০ হার্টজ। ডিসপ্লে প্রোটেকশন এর জন্য গরিলা গ্লাস ৬ থাকছে।

অন্যদিকে note 20 ultra তে কিছুটা বড় ডিসপ্লে দেওয়া হয়েছে যা হল-৬.৯ইঞ্চি। এইখানে বড় কয়েকটা আপগ্রেড থাকছে note 20 থেকে। প্রথমত হচ্ছে FHD+ এর পরিবর্তে QHD+, সুপার এমোলেডের পরিবর্তে ডাইনামিক এমোলেড, রিফ্রেশ রেইট ৬০ হার্টজ পরিবর্তে ১২০ হার্টজ, ফ্ল্যাট ডিসপ্লের পরিবর্তে কার্ভ এবং গরিলা গ্লাস ৬ পরিবর্তে গরিলা গ্লাস এর লেটেস্ট ভার্সন ভিক্টাস দেওয়া হয়েছে। দুইটি ফোনেই HDR10+ সাপোর্ট থাকছে।

Samsung note 20/note 20 Ultra – ক্যামেরা

samsung note 20 এর ক্যামেরা স্পেক্সের দিকে তাকালে এইখানে s20, s20+ এর সাথে সাদৃশ্য বেশি চোখে পড়ে। আসলেই ঐ ক্যামেরা সেটাপও এইখানে ব্যবহার করা হয়েছে। মানে ১২ মেগাপিক্সেলের মেইন ক্যামেরা যার এপেচার f/1.8, সেন্সর সাইজ হচ্ছে 1.4µm এর। যাতে অপিটিক্যাল ইমেজ স্ট্যাবিলাইজেশন থাকছে। সাথে  ১২ মেগাপিক্সেলের আল্ট্রা-ওয়াইড-এঙ্গেল ক্যামেরা যার ফিল্ড অব ভিউ ১২০ ডিগ্রি। তৃতীয় ও সবশেষ মডিউলটি হচ্ছে ৬৪ মেগাপিক্সেলের টেলিফটো ক্যামেরা যাতে 3X হাইব্রিড অপটিক্যাল জুমে ছবি তোলা যাবে।

অন্যদিকে, samsung note 20 ultra এর মেইন ক্যামেরা সেন্সরটি ১০৮ মেগাপিক্সেলের। অন্যদিকে samsung note 20 এর মতই ১২ মেগাপিক্সেলের আল্ট্রা-ওয়াইড-এঙ্গেল ক্যামেরা রয়েছে। কিন্তু টেলিফটো ক্যামরা ১২ মেগাপিক্সেলের দেওয়া হয়েছে যাতে 5X হাইব্রিড অপটিক্যাল জুম সাপোর্টেড।

উভয় ফোনেই মেইন ক্যামেরা দিয়ে 4K60, 1080p240, 720p960 এফপিএসে ভিডিও রেকর্ড করা যাবে।
ফ্রন্ট ক্যামেরাতেও উভয় ফোন সেইম স্পেক্স শেয়ার করছে যা হচ্ছে, ১০ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা সেন্সর, যার এপেচার f/2.2, ও সাইজ হচ্ছে 1.22µm।

Samsung note 20/note 20 Ultra – ব্যাটারি+ চার্জিং

note 20 এর ব্যাটারির ধারন ক্ষমতা হচ্ছে 4300mAh। ফাস্ট চার্জিং এর থাকছে স্যামসাং এর নিজস্ব ২৫ ওয়াটের ফাস্ট চার্জিং, ১৫ ওয়াটের ওয়্যারলেস চার্জিং সাপোর্ট ও রিভার্স চার্জিং সাপোর্ট।
অন্যদিকে samsung note 20 ultra’তে ব্যাটারি সাইজ কিছুটা বড় অর্থাৎ 4500mAh দিলেও বাদ বাকি ফাস্ট চার্জিং ও ওয়্যারলেস চার্জিং ইত্যাদি সুবিধা সেম টু সেম।

Samsung note 20/note 20 Ultra – কালার

উভয় ফোন তিনটি কালার ভ্যারিয়েন্টে পাওয়া যাবে,

samsung note 20 ->Mystic Green, Mystic Bronze ও Mystic Gray

samsung note 20 ultra ->Mystic Green, Mystic Bronze ও Mystic White

ultra ভ্যারিয়েন্টে গ্লাস ব্যাক ইউস করলেও note 20 তে প্লাস্টিক ব্যাক ব্যবহার করা হয়েছে।

Samsung note 20/note 20 Ultra – অন্যান্য  ফিচার

আরেকটি উল্লেখযোগ্য ফিচার হচ্ছে ফোনটি দুইটি IP68 water resistance সাপোর্টেড। নোট সিরিজের অন্যতম আকর্ষন হচ্ছে এর সাথে আসার s-pen যা প্রোডাকটিভিটিতে অনেক সাহায্য করে। এখানে প্রতিবারেই স্যামসাং নতুন কিছু আপগ্রেড নিয়ে হাজির হয়। এবার তাঁরা ক্লেইম করছে আগের চেয়ে কম লেটেন্সিতে s-pen কাজ করবে। তাছাড়া আর্টিফিশাল ইন্টিলেজেন্স ব্যবহার করার কারণে আগের চেয়ে অনেক বেটার ইনপুট প্রোডিক্ট করতে পারবে। আউট অফ দ্য বক্স তে এন্ড্রয়েড ১০ পাওয়া যাবে যার উপরে থাকবে স্যামসাং এর নিজস্ব কাস্টোমাইজড স্কিন OneUI2.5। ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানারটি ইন-ডিসপ্লে। ওয়াইফাই-৬, ব্লুটুথ ৫,জিপিএস-গ্লোনাস ও ইউসবি টাইপ-সি ইত্যাদি লেটেস্ট টেকনোলজি তো থাকছেই।

Samsung note 20/note 20 Ultra – মূল্য

4G/5G  মিলিয়ে অনেক ভ্যারিয়েন্ট হওয়ার কারণে সব ভ্যারিয়েন্টের মূল্য এই আর্টিকেল লিখা পর্যন্ত জানা সম্ভব হয়নি। তবে samsung note 20 5G 256GB ভ্যারিয়েন্টের মূল্য ধরা হয়েছে ইউরোপ এমেরিকাতে ৯৯৯ ডলার অন্য দিকে samsung note 20 ultra 5G 256GB ভ্যারিয়েন্টের মূল্য ধরা হয়েছে ১২৯৯ ডলার এবং 5G 512GB এর হল ১৪৪৯ ডলার। বিভিন্ন দেশে ইতিমধ্যে প্রি-অর্ডার শুরু হয়েছে। আশা করা যাচ্ছে খুব অল্প সময়ে আমাদের দেশেও এভাইলেবল হয়ে যাবে।

 

- Advertisement -

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here