সব জল্পনা কল্পনা, কয়েকমাস যাবত একের পর এক লিক, rumors , নিত্যনতুন সব তথ্য ।RTX 3000 সিরিজ নিয়ে বিশ্বজুড়ে গেমারদের ও enthusiastদের হাইপ কম ছিল না। অবশেষে এক অনলাইন ইভেন্টের মাধ্যমে অফিশিয়ালি আলোর মুখ দেখলো RTX 3000 সিরিজ। রিভিল হলো ৩টি কার্ড। চলুন দেখে নেওয়া যাক দাম স্পেকস এবং রিলিজ ডেট।

Turing vs Ampere:At a glance

এবারের RTX কার্ডগুলো Ampere আর্কিটেকচারের উপর তৈরী।(Samsung 8N NVIDIA Custom Process) এছাড়াও মেমোরির ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়েছে মাইক্রনের GDDR6X মেমোরি যা NVIDIA এর মতে পৃথিবীর সবথেকে ফাস্ট।

আর যদি RTX কার্ডের বিশেষ ৩টি স্পেসিফিকেশনের তুলনা করা যায়, তাহলে আগের জেনারেশন অর্থাৎ Turing ভিত্তিক কার্ডগুলোর থেকে Ampere কার্ডে Shader,RT Cores,Tensor Cores প্রত্যেকটির সংখ্যাই বেশি । Turing আর্কিটেকচার থেকে Ampere এ 2.7 গুণ বেশি Shader, 1.7 গুণ Ray Tracing Cores এবং 2.7 গুণ বেশি Tensor Cores । এডভার্টাইজে যেভাবে পারফর্মেন্স এর তুলনা দেখানো হয়েছে, তার অন্যতম কারণ যে এগুলো তা বেশ ভালোই আন্দাজ করা যায়। PCIe Interface:4.0 ।

পারফর্মেন্স এর দিক দিয়ে যে গ্রাফগুলো দেখা যাচ্ছে তাতে পুর্ববর্তী জেনারেশন থেকে ২গুণ বেশি পারফর্মেন্স দেখতে পাওয়া যাচ্ছে।

Performance/watt রেশিও তেও বেশ বড় রকমের উন্নতি হাইলাইট করা হয়েছে।

বেশ কয়েকটি গেমের বেঞ্চমার্ক দেখানো হয়েছে পুর্ববর্তী প্রজন্মের RTX কার্ডগুলোর সাথে। সেখানকার ব্লক গুলোও আমরা অনেক উচুই দেখতে পাচ্ছি।

RTX 3090(Big Ferocious GPU)

এবারের RTX 30 সিরিজের, Ampere আর্কিটেকচারের সবথেকে পাওয়ারফুল কার্ড হচ্ছে RTX 3090।  আগের ফ্লাগশিপ এর  11এর স্থলে 36 Shader TFLOPS, 34 RT-TFLOPS এর স্থলে 69 এবং 89 Tensor-TFLOPS এর পরিবর্তে এক লাফে 285 Tensor TFLOPS রয়েছে জিপিইউটিতে।

২৪ গিগাবাইট GDDR6X মেমোরি ক্যাপাসিটি থাকছে কার্ডটিতে। Memory Interface Width 384-bit

1.70 Ghz এর বুস্ট ক্লক এর কার্ডটিতে ৩৫০ ওয়াটে পাওয়ার লাগবে এবং রেকমেন্ডেড পাওয়ার সাপ্লাই 750watt। কার্ডটিতে ৩টি কুলিং ফ্যান রয়েছে।

RTX 3090 কার্ডটি ২৪ সেপ্টেম্বর থেকে ফাউন্ডার এডিশন এভেলেবল হবে এবং কার্ডটির মুল্য নির্ধারণ করা হয়েছে 1499 US ডলার

RTX 3080(the ultimate play)

RTX 3080 কার্ডটিতে পারফর্মেন্স পাওয়া যাবে 2080 থেকে ২ গুণ। Shader,RT Cores এবং Tensor Cores রয়েছে যথাক্রমে 30,58,238 T-FLOPS ।

Cuda কোরস রয়েছে 8704টি  এবং বুস্ট ক্লক 1.71ghz. ১০ গিগাবাইট GDDR6X মেমোরির interface Width 320-Bit ।

জিপিইউ পাওয়ার ৩২০ ওয়াট এবং রেকমেন্ডেড পাওয়ার সাপ্লাই ৭৫০ ওয়াট।এটি একটি ডাবল স্লটের কার্ড।

RTX 3080 কার্ডটি এভেলেবল হবে ১৭ই সেপ্টেম্বর থেকে এবং কার্ডটির ফাউন্ডার এডিশনের দাম 699 US ডলার

RTX 3070(faster than 2080ti)

এনভিডিয়ার RTX ইভেন্টে রিভিল হওয়া ৩টি কার্ডের মধ্যে সর্বশেষ এবং সবথেকে ছোট সদস্য বলা যায় RTX 3070 কে। তবে এই কার্ডটিও আগের জেনারেশনের ফ্লাগশিপ কার্ড 2080ti থেকে বেশি পাওয়ারফুল বলে দাবী করেছে এনভিডিয়া। এটিও ২ স্লটের কার্ড।

এই কার্ডটিতে 20 TFLOPS Shader,40 TFLOPS RT Cores, 163 TFLOPS Tensor রয়েছে।

Cuda cores 5888 এবং ক্লক স্পিড 1.73 ghz ।

এর মেমোরি কনফিগারেশন ৮ গিগাবাইট, মেমোরি টাইপ GDDR6 এবং Interface width 256-bit

জিপিইউ পাওয়ার ২২০ ওয়াট এবং পাওয়ার সাপ্লাই লাগবে ৬৫০ ওয়াটের।

RTX 3070 এর মুল্য 499 US ডলার এবং অক্টোবর মাস থেকে পাওয়া যাবে।

অন্যন্যঃNVIDIA BROADCAST,NVIDIA REFLEX, 360HZ MONITOR

আরো বেশ কিছু টেকনোলজি দেখানো হয়েছে লাইভ ইভেন্টে। তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে NVIDIA REFLEX, এটি রিয়াকশন টাইম ইম্প্রুভ করে। প্রদর্শন করা হয়েছে 360hz এর ডিসপ্লে। এবং NVIDIA Broadcast নামের একটি নতুন ফিচার যা স্ট্রিমিং এর জন্য মুলত। এই ফিচারটি অনেক এডভান্স কিছু অপশন এর সাথে আসতে যাচ্ছে যা স্ট্রিমারদের ও ভিউয়ারদের এক্সপেরিয়েন্স অন্য এক উচ্চতায় নিয়ে যাবে।

Trailers:

দেখানো হয়েছে RTX Enabled বেশ কয়েকটি গেমের ট্রেইলার।। যার মধ্যে ছিল fortnite, Cyberpunk 2077 এবং Call of Duty এর নতুন গেম।