21 C
Dhaka
Monday, December 6, 2021

Redmi K40 Series এর তিনটি ফোন নিয়ে যা যা জানা দরকার!

- Advertisement -asus motherboards

পূর্বনির্ধারিত তারিখ অনুযায়ী অর্থাৎ ২৫শেই ফ্রেবুয়ারী চায়নাতে এনাউন্স হয়ে গেল  Redmi K40 Series। বছরের এখনো ২মাস পার না হলেও বেশ কিছু হাই এন্ড ফ্ল্যাগশিপ ও ফ্ল্যাগশিপ কিলার এনাউন্স হয়ে গেল। এমনি একটি এন্টিসিপিয়েটেড লাইন-আপ ছিল এই Redmi K40 Series। কিছু রিউমার ও কনফার্ম স্পেকস নিয়ে আমরা ইতিমধ্যে একটি আর্টিকেল পাবলিশ করেছি। ঐ আর্টিকেলে আমরা বলেছিলাম এই লাইন-আপে আসতে যাচ্ছে দুইটি ফোন- অর্থাৎ স্ট্যান্ডার্ড Redmi K40 ও Redmi K40 Pro। কিন্তু আজকের ইভেন্টে আমরা কিছুটা সারপ্রাইসজ হয়ে যায় এডিশনাল Redmi K4 Pro Plus দেখে। অনেকেই জানেন K20 Series এর মাধ্যমে Xiaomi মার্কেটে মোটামুটি হইচই ফেলে দিয়েছিল। কিন্তু পরের K30 Series দিয়ে পুরোনো সেই হাইপ ধরে রাখতে পারেনি। কিন্তু Redmi K40 Series দিয়ে কি পারবে পুরোনো সেই হাইপ ফিরিয়ে আনতে? জানার জন্য চোখ রাখতে হবে পুরো আর্টিকেল জুড়ে।

ডিজাইন

- Advertisement -

 

 

বেশ কিছু পরিবর্তন রয়েছে ডিজাইনে। তবে একটা জিনিস পরিচিত সেটা হচ্ছে পিল শেইপড ক্যামেরা মডিউল। অর্থাৎ Mi 11 এর মতই অনেকটা একই ক্যামেরা মডিউল ব্যবহার করা হয়েছে। আগেও বলা হয়েছে, এই বছর অনেক গুলো ফোনে এই ডিজাইন প্যাটার্ন ফলো করবে মনে হচ্ছে। ফোনের থিকনেস সিগনিফিক্যান্টলি কমানো হয়েছে। এই সিরিজের ফোনের গুলোর থিকনিস হচ্ছে মাত্র 7.8mm. এছাড়া সামনে দিকে K20 Pro, K30 Pro তে যেখানে পপ আপ ক্যামেরা ছিল সেখানে এই সিরিজের সেন্টার এলাইনড পাঞ্চহোল দেওয়া হয়েছে। সামনের দিকে Gorilla Glass 5 দিলেও পিছনে খুব সম্ভবত প্লাস্টিক ব্যাক দেওয়া হয়েছে।

- Advertisement -

ডিসপ্লে

এই সিরিজের সবচেয়ে ইউনিকনেস হচ্ছে সুপিরিয়র ডিসপ্লে ব্যবহার করা হয়েছে। আগের আর্টিকেলে আমরা জানিয়েছিলাম Mi 11 ও Samsung S21 সিরিজে যে ডিসপ্লে ব্যবহার করা হয়েছে সেইম ডিসপ্লে ব্যবহার করা হয়ছে। এই ডিসপ্লেতে অনেক কিছু দেওয়া হয়েছে ফ্ল্যাগশিপ লেভেলের । প্রথমত, এটি ফুল এইচডি রেজ্যুলেশনের এমোলেড ডিসপ্লে, যার রিফ্রেশ রেইট ১২০ হার্টজ এবং টাচ স্যাম্পলিং রেইট ৩৬০ হার্টজ। ব্রাইটনেস হায়েস্ট 1300 nits ও এভারেজ 900 nits। তাছাড়া ডিসপ্লেটি True Tone ও HDR10+ কালার সাপোর্টেড। ও হ্যাঁ, ডিসপ্লের সাইজ হচ্ছে 6.67-inch। এই স্পেকসগুলো এই সিরিজের তিনটি ফোনর জন্য প্রযোজ্য। শাওমির মতে এটি DisplayMate এ A+ rating পেয়েছে।

- Advertisement -

এমোলেড ডিসপ্লে দেওয়া হলে অনেকে বাই ডি ফল্ট ধরে রাখেন যে সিকিউরিটির জন্য তাহলে ইন-ডিসপ্লে ফিংগার প্রিন্ট দেওয়া হবে কিন্তু অদ্ভুত হলেও সত্যি এই সিরিজে কোনো ফোনই এই কাজ করা হয়নি। বরঞ্চ দেওয়া হয়েছে সাইড মাউন্টেড ফিংগার প্রিন্ট ম্যাকানিজম। খুব সম্ভবত কস্ট কাটিং এর জন্য এমনটা করে থাকতে পারে।

 

 

ক্যামেরা

সব ফোনেই দেওয়া হয়লে ট্রিপল ক্যামেরা সেটাপ। এই সেকশানটির কারণেই তিনটি ফোনের তিনটি ভিন্ন নাম। সব ফোনেই দেওয়া হয়লে ট্রিপল ক্যামেরা সেটাপ। তাও শুধু প্রাইমারি ক্যামেরা দিক থেকে পার্থক্য। অন্য বাদবাকি ক্যামেরা সেন্সরগুলো আবার সব ফোনে একই। ফ্রন্ট ক্যামেরা সেন্সর হছে 20MP সেটি হচ্ছে Samsung S5K3T2। অন্যদিকে 8MP এর আল্ট্রা ওয়াইড শুটারটি হচ্ছে Sony IMX335 এবং 5MP টেলিফটো ম্যাক্রো সেন্সর।

এবার প্রাইমারি ক্যামেরা দিকে লক্ষ্য করলে দেখা যাচ্ছে স্ট্যান্ডার্ড K40 এর প্রাইমারি সেন্সর হচ্ছে 48MP Sony IMX582, K40 Pro এ দেওয়া হয়েছে 64MP Sony IMX686,  K40 Pro Plus এ দেওয়া হয়েছে 108MP Samsung HM2।

চিপসেট

একদম লোয়ার এন্ড ফোন K40তে দেওয়া হয়েছে Snapdragon 870। যেটি কিনা গত বছরের Snapdragon 865+ এর ওভার ক্লকড ভার্সন। এই নিয়ে বিস্তারিত আর্টিকেল রয়েছে আমারে ওয়েবে। পড়তে পারবেন এইখান থেকে। বাদবাকি ফোন অর্থাৎ K40 Pro এবং K40 Pro Plus উভয়ে দেওয়া হয়েছে Snapdragon 888। উভয় চিপসেট অক্টাকোরের। কিন্তু Snapdragon 870 7nm এর কিন্তু Snapdragon 888 5nm এ। উভয় চিপসেটই ট্রাই ক্লাস্টার কোর আর্টিকেচারে বানানো। কিন্তু Snapdragon 888 এ প্রাইম কোর হচ্ছে একদম নতুন Cortex X1 এবং পারফরমেন্স কোর হচ্ছে তাও নতুন Cortex A878। এছাড়া বিস্তারিত জানতে পারবেন আমাদের দুই পর্বের আর্টিকেল থেকে [প্রথম পর্ব][দ্বিতীয় পর্ব]

অন্যদিকে র‍্যাম স্টোরেজও লেটেস্ট টেকনোলজি ব্যবহার করা হয়েছে। অর্থাৎ র‍্যামের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়েছে LPDDR5 অন্যদিকে স্টোরেজের ক্ষেত্রে UFS3.1 দেওয়া হয়েছে।

ব্যাটারি ও অন্যান্য

সব ফোনে দেওয়া হয়েছে 4520mAh ব্যাটারি। সাথে রয়েছে 33W ফাস্ট চার্জিং যেটি দিয়ে ৫২ মিনিটে ফুল চার্জ হয়ে যাবে আউট দ্য বক্স চার্জার দিয়েই। সব ফোনেই রয়েছে ডুয়েল স্টেরিও স্পিকার। যার জানেন না তাঁদের জন্য ডুয়েল স্টেরিও স্পিকারে ইয়ারপিসকে সেকেন্ডারি স্পিকার হিসেবে ব্যবহার করা হয়। এছাড়া আরো রয়েছে Dolby Atmos, Hi-Res Audio, and Hi-Res Audio Wireless, Bluetooth 5.1 IR Blaster, NFC, Color Temperature সেন্সর। লাস্টলি IP53 splash resistance দেওয়া হয়েছে টুকটাক স্প্ল্যাশ থেকে প্রোটেক্ট করার জন্য।

অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে Android 11 বেইসড MIUI 12 থাকবে আউট অফ দ্য বক্স।

কালার, দাম ও ভ্যারিয়েন্ট

Redmi K40:

6GB/128GB: CNY 1999 (~TK 26K)
8GB/128GB: CNY 2199 (~TK 28K)
8GB/256GB: CNY 2499 (~TK 33K)
12GB/256GB: CNY 2699 (~TK 35K)

Redmi K40 Pro:

6GB/128GB: CNY 2,799 (~TK 37K)
8GB/128GB: CNY 2,999 (~TK 39K)
8GB+256GB: CNY 3,299 (~TK 43K)

Redmi K40 Pro Plus:

12GB/256GB: CNY 3,699 (~TK 43K)

কনভার্টেড বাংলাদেশি টাকা দেওয়া হল আপনাদের বুঝার সুবিধার্তে

কালার ভারিয়েন্ট হিসেবে পাওয়া যাবে এই তিনটি অপশান- Bright Black, Dreamland, and Sunny Snow.

খুব শীঘ্রই চায়নাতে এইসব ফোন বিক্রি হওয়া শুরু হয়ে যাবে। গ্লোবাল মার্কেটে হয়ত ভিন্ন নামে এই তিনটি ফোনের মধ্যে একটি আসতে পারে খুব সম্ভবত POCO এর ব্যানারে। ক্যামেরা সেকশানে আমরা ইম্প্রেসিভ অথবা একদম নতুন কিছু না দেখলেও ডিসপ্লে, ডিজাইন ও চিপসেট প্রিভিয়াস সিরিজ থেকে ব্যাপক আপগ্রেড এনেছে Xiaomi।

স্পেকস ও প্রাইস বিবেচনা ধরলে K40 ডেফিনেটলি ফ্ল্যাগশিপ কিলার হওয়ার মত যোগ্যতা রাখে। কিন্তু বাংলাদেশে আনঅফিশিয়াল প্রাইসিং প্রথমদিকে যে আকাশ ছোঁয়া থাকে আমাদের দেশে আনঅফিশিয়াল আসলে তখন এটি আসলেই ফ্ল্যাগশিপ কিলার থাকে কিনা যথেষ্ট সন্দেহ। আবার আপকামিং চাইনিজ ফোন গুলোতে GMS আলাদা ভাবে ইন্সটল করা যাবে কিনা সেটিও এখনও পরিষ্কার না। আবার অন্যদিকে কয়েকদিন পরই আসছে Realme’র এফ্রোডেবল ফ্ল্যাগশিপ।

- Advertisement -asus graphics card
Kowcher Chy
A tech enthusiast ,amateur photographer and sluggish coder with an Engineering degree to destroy them all.

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here